ঢাকা, বৃহস্পতিবার ০২, জুলাই ২০২০ ২২:৩৪:০৪ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনায় আক্রান্ত পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী, সিএমএইচে ভর্তি দেশে করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু ৬০ হাজার ছাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তের নতুন রেকর্ড করোনা: ভারতে আক্রান্ত ৬ লাখ ছাড়ালো, মৃত্যু প্রায় ১৮ হাজার

অবশেষে দেশে ফিরছেন সেই সুমি

অনলাইন ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৯:৪৫ পিএম, ১১ নভেম্বর ২০১৯ সোমবার

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশি গৃহকর্মী সুমি আক্তার (২৬)।

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশি গৃহকর্মী সুমি আক্তার (২৬)।

সৌদি আরবে নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশি গৃহকর্মী সুমি আক্তার (২৬) অবশেষে দেশে ফিরছেন। আগামী দুই-একদিনের মধ্যে দেশে ফিরে আসবেন তিনি। সৌদির নাজরান শহরের শ্রম আদালতে সুমির নিয়োগকর্তার (কপিল) দাবিকৃত অর্থ নামঞ্জুর হলে সুমির ফেরার পথ সুগম হয়।

রোববার জেদ্দার শ্রম আদালতে সুমির বিষয়ে শুনানি হয়। এতে তার গৃহকর্তাকে কোনো ধরনের অর্থ পরিশোধ করতে হবে না বলে রায় দেন বিচারক।

জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলের প্রথম সচিব কে এম সালাহ উদ্দিনের স্বাক্ষরিত এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নাজরান শহরের শ্রম আদালতে জেদ্দা কনস্যুলেট এর প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতে সুমি আক্তারের বিষয়টি শুনানি হয়। আদালত শুনানিতে সুমির নিয়োগকর্তার দাবিকৃত ২২ হাজার সৌদি রিয়াল ফেরত পাওয়ার আবেদনটি নামঞ্জুর হয়। পাশাপাশি জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সুমির নিয়োগকর্তা তাকে দেশে ফেরার অনুমতিপত্র (ফাইনাল এক্সিট) প্রদান করেন।

নির্যাতিতা সুমি আক্তারকে জেদ্দায় বাংলাদেশ কনস্যুলেটের প্রচেষ্টায় ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের অর্থায়নে দেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। খুব শীঘ্রই তিনি বাংলাদেশে ফিরতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সুমির একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সেখানে তিনি কান্নারত অবস্থায় গৃহকর্তার দ্বারা নির্যাতিত হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন। এ ঘটনার পর গত ৪ নভেম্বর জেদ্দা বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল ও নাজরান পুলিশ প্রধানের সহযোগিতায় সুমিকে তার গৃহকর্তার বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পর তাকে একটি সেফ হোমে (নিরাপদ বাসস্থান) রাখা হয়।

পরে তাকে দেশে ফেরানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়। কিন্তু তা নিয়ে নানা জটিলতা তৈরি হয়। তার সৌদি আরব ত্যাগে ২২ হাজার রিয়াল দাবি করেন নিয়োগকর্তা। তা না হলে সুমিকে ‘ফাইনাল এক্সিট’ (দেশে ফেরার অনুমতিপত্র) দেবেন না বলে জানিয়েছিলেন তিনি।