ঢাকা, রবিবার ১৯, জানুয়ারি ২০২০ ৮:২৫:০১ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
অনশন ভাঙল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা পেছালো অবশেষে পেছালো ঢাকা সিটি নির্বাচন লিবিয়ায় সহিংসতার কারণে ঝুঁকিতে শিশুরা: ইউনিসেফ সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি

আদালত প্রাঙ্গণে মিন্নির ছবি-ভিডিও ধারণ করা কে এই ‘নারী’

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:৫৭ পিএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ধার্য্য তারিখে গত বুধবার বাবার সঙ্গে আদালতে যান নিহতের স্ত্রী ও মামলার আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। ওই দিনই রিফাত হত্যা মামলার অভিযোগপত্র আমলে নিয়েছেন আদালত।

কিন্তু সেদিন আদালত প্রাঙ্গণে মিন্নির ছবি তুলতে দেখা যায় বোরকাপরা এক ‘নারী’কে। তবে ওই নারীকে নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে মিন্নির পরিবার।

মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের বক্তব্য অনুসারে ভিডিও ফুটেজে এক নারীর অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন গণমাধ্যম কর্মীরা। আদালতে উপস্থিত কয়েকজন সংবাদকর্মী ওই নারীর উপস্থিতি ও ছবি তোলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মিন্নির বাবা বলেন, ‘আমি মিন্নিকে নিয়ে আদালত থেকে বের হওয়ার সময় গণমাধ্যকর্মীদের পাশাপাশি বোরকাপরিহিত একজন ব্যক্তি মিন্নির কাছে এসে ছবি তোলেন ও ভিডিও করতে থাকেন।’

মোজাম্মেল হোসেন কিশোর বলেন, ‘মিন্নিকে নিয়ে সকাল ১০টা সময় আদালত প্রাঙ্গণে হাজির হয়েছিলাম। কিন্তু আদালতের হাজিরায় দেরি হবে জেনে এজলাসের পাশের একটি কক্ষে অপেক্ষা করছিলাম। এ সময় বোরকাপরা ওই ব্যক্তি আমাদের আশেপাশে ঘোরাফেরা করছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘কালো বোরকা আবৃত, মুখোশে মুখ ঢাকা, হাতে-পায়ে মোজাপরিহিত ওই নারীর হাতে একটি ব্যাগ ছিল। দেখলে একজন পর্দানশীল ধর্মপ্রাণ নারী মনে হলেও তিনি যেভাবে মিন্নির গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছিলেন, যে কারও এতে সন্দেহ হওয়ার কথা। তবে নারী ছিলেন, নাকি কোনো পুরুষ বোরকা পরে নারী সেজে মিন্নিসহ আমার পরিবারে ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে এসেছিলেন, এটা জানা দরকার।’

পুলিশকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করার অনুরোধ জানিয়েছেন মোজাম্মেল হোসেন কিশোর।

গণমাধ্যমকর্মীদের ধারণকৃত ওই ছবিতে দেখা যায়, হাতে খয়েরি রংয়ের একটি ব্যাগ, কালো বোরকা, নিকাবে মুখঢাকা ওই নারী মিন্নির খুব কাছ থেকে ছবি তুলছে অথবা ভিডিও করছে। এ সময় তার হাতে কালো কাভারের একটি স্মার্টফোন ছিল।

রাসেল নামে এক সংবাদকর্মী বুধবার সকালে আদালত প্রাঙ্গণে উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, ‘সাংবাদিকরা যখন মিন্নির ছবি তুলছিলেন, তখন হাতে-পায়ে মোজাসহ বোরকাবৃত এক নারীও সকলের ভিড় ঠেলে মিন্নির খুব কাছে গিয়ে ছবি তুলতে থাকেন।‘

আদালত প্রাঙ্গণে উপস্থিত শহিদুল ইসলাম স্বপ্ন নামে আরেক সাংবাদিক বলেন, ‘সকালে আদালত এলাকায় বোরকাপরা একজন নারীকে ঘোরাফেরা করতে দেখেছি। যখন মিন্নি তার বাবার সঙ্গে এজলাস থেকে বের হয়, তখন হাতে-পায়ে মোজাসহ বোরকাপরা ওই নারী মিন্নির খুব কাছে গিয়ে ভিডিও করেন।’

এ বিষয়ে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবীর মোহাম্মদ হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের জানা ছিল না। গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে আজই এ ঘটনা শুনেছি। এ বিষয়ে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয় রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি হামলাকারীদের সঙ্গে বাধা দিয়েও তাদের দমাতে পারেননি। গুরুতর আহত রিফাতকে ওইদিন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় পরে গ্রেপ্তার করা হয় স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে। গ্রেপ্তারের পরই মিন্নি প্রধান সাক্ষী থেকে হন আসামি। পাঁচ দিনের রিমান্ডের মধ্যে দুদিন শেষ হতেই রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি।

পরে গত ৫ আগস্ট মিন্নির বাবা হাইকোর্টে মিন্নির জামিন চেয়ে আবেদন করেন। হাইকোর্ট গত ২০ আগস্ট মিন্নির জামিন প্রশ্নে রুল জারি করে ২৮ আগস্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে সিডিসহ হাজির হতে বলেন। সে অনুযায়ী ২৮ আগস্ট শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ২৯ আগস্ট দুটি শর্তে মিন্নির জামিন মঞ্জুর করেন।

শর্ত দুটি হচ্ছে, মিন্নি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন না এবং তাকে তার বাবার জিম্মায় থাকতে হবে। জামিনে থাকা অবস্থায় মিন্নি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললে তার জামিন বাতিল হবে বলেও আদেশে উল্লেখ করেন হাইকোর্ট। কিন্তু ১ সেপ্টেম্বর জামিন স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলেও মিন্নির জামিন আদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।