ঢাকা, বুধবার ২৭, অক্টোবর ২০২১ ১৫:২৯:৩৯ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
কাবুলে নারীদের বিক্ষোভ বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে সদা প্রস্তুত বাসেত মজুমদারের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণের মামলার রায় ফের পেছালো টাঙ্গাইলে কিশোরীর গলা কাটা লাশ উদ্ধার বিশ্বে করোনায় মৃত্যু সাড়ে ৭ হাজার খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার উন্নতি দেশে করোনায় শনাক্তের হার ১ দশমিক ৪৪ শতাংশ

আফগানিস্তানের নারী ফুটবলাররা আশ্রয় পেলেন পর্তুগালে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৭:১৭ পিএম, ১ অক্টোবর ২০২১ শুক্রবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর সে দেশের যুব নারী দলের ফুটবলারদের কয়েকজন সপরিবারে পর্তুগালে আশ্রয় নিয়েছেন৷ তাদের একজন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে দেখা হওয়ারও স্বপ্ন দেখছেন৷

আগস্টের মাঝামাঝি তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে৷ এরপর তারা জানিয়ে দেয়, মেয়েদের হয়ত খেলাধুলা করার অনুমতি দেওয়া হবে না, কারণ, তারা মনে করে এটি ‘প্রয়োজনীয় নয়’৷ এবং মেয়েদের এতে মুখ ও শরীর ঢাকা থাকবে না৷ তাই সে দেশের যুব নারী দলের ফুটবলারদের কয়েকজন পরিবারসহ ১৯ সেপ্টেম্বর পর্তুগালে পৌঁছেছেন৷ মোট ৮০ জন পর্তুগাল গেছেন৷ তাদের মধ্যে বাচ্চাও আছে৷ পর্তুগাল তাদের আশ্রয় দিয়েছে৷

অধিনায়কের উদ্যোগ
আফগানিস্তানের নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক ফারখুন্দা মুহতাজ  ঐ ফুটবলারদের পর্তুগালে নেয়ার ব্যবস্থা করেন৷ মুহতাজ নিজে ক্যানাডায় থাকেন৷ সেখানে তিনি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটবল দলের সহকারি কোচ৷ বুধবার রাতে তিনি ফুটবলারদের সঙ্গে দেখা করতে লিসবন গিয়েছিলেন৷

আবেগঘন মিলন
তরুণী ফুটবলাররা মুহতাজকে কাছে পেয়ে জড়িয়ে ধরে৷ কেউ কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি৷ মুহতাজ জানান, ‘‘তারা তাদের ভালোবাসার খেলাটি খেলতে পারবে এ বিষয়টি নিশ্চিত করতে আমরা এই পদক্ষেপ (নারী ফুটবলারদের সরিয়ে নেওয়া) নিয়েছিলাম৷’’

রোনালদোর দেখা পাওয়ার স্বপ্ন
পর্তুগালে পৌঁছানো ফুটবলারদের একজন ১৫ বছর বয়সি সারাহ৷ দেশ ছাড়তে কষ্ট হলেও পর্তুগালে গিয়ে সে নিজেকে নিরাপদ ভাবছে৷ সম্ভব হলে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সঙ্গে দেখা করতে চায় সে৷ রয়টার্সকে সে বলেছে, ‘‘এখন আমি মুক্ত৷ আমার স্বপ্ন রোনালদোর মতো একজন ভালো খেলোয়াড় হওয়া৷ পাশাপাশি পর্তুগালে একজন বড় ব্যবসায়ী হতে চাই৷

দেশে ফেরা?
সারাহর আশা, একদিন আবার সে মাতৃভূমিতে ফিরে যাবে৷ তবে অবশ্যই সেখানে মুক্ত ও স্বাধীনভাবে বসবাস করার অধিকার পাওয়া গেলে তবেই৷ তার মা অবশ্য আফগানিস্তানে ফেরার তেমন কোনো সম্ভাবনা দেখছেন না, কারণ, আফগানিস্তানে আগেও তালেবানের শাসন দেখেছেন তিনি৷