ঢাকা, বুধবার ১১, ডিসেম্বর ২০১৯ ২২:১৪:৫১ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
রাখাইনে গণহত্যার কথা অস্বীকার করলেন সু চি সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সান্ধ্যকোর্স বন্ধের নির্দেশ সু চির ‘নৈতিক অবক্ষয়’ দেখে দুঃখ পেয়েছি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী কুষ্টিয়ায় অধ্যক্ষের কক্ষে বিষপানে কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু ২০৩০ সাল নাগাদ কুষ্ঠরোগ নির্মূল সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী

এইডসে নতুন করে আক্রান্ত ১০২০ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:২৭ পিএম, ১ ডিসেম্বর ২০১৯ রবিবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্ব এইডস দিবস আজ। এইডসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৮৮ সাল থেকে ১ ডিসেম্বর থেকে এই দিবসটি পালন করছে বিশ্ব সম্প্রদায়। বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে বিশ্ব এইডস দিবস।এই উপলক্ষে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যেগে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে এক বিশেষ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দেশে গত এক বছরে নতুন করে এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়েছে এক হাজার ২০ জন।

রবিবার (০১ ডিসেম্বর) শুরু হওয়া এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ক সচিব শেখ ইউসুফ হারুন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাক্তার আবুল কালাম আজাদ, এইচ আই ভি এইডস এর লাইন ডিরেক্টর ডক্টর সামিউল ইসলাম সাদী।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের ২৩টি জেলা বেশি এইডস ঝুঁকিতে আছে। ১৯৮৯ সাল থেকে এই পর্যন্ত ছয় হাজার ৫৫৪ জনকে এইচআইভি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এই পর্যন্ত মারা গেছে এক হাজার ৪০০ জন। বাংলাদেশে মাসে একজন এইডস আক্রান্ত রোগীর জন্য সরকারের খরচ ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। গত বছর এক হাজার ২০ জন নতুন রোগী সনাক্ত হন। এর মধ্যে ১০৫ জন রোহিঙ্গা। মারা গেছেন ১২৭ জন। যেসব জেলা এইডস-এর ঝুঁকিতে রয়েছে, এগুলো হচ্ছে- ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ,  পটুয়াখালী, বাগেরহাট, যশোর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, দিনাজপুর, রাজশাহী, বগুরা, পাবনা, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, বরিশাল, কুমিল্লা, চাঁদপুর, সিলেট, মৌলভাবাজার, সিরাজগঞ্জ, খুলনা ও সাতক্ষীরা।

বর্তমানে দেশে চিকিৎসা সেবা ও এইচআইভি শনাক্তকরণে সরকারি ১২টি হাসপাতালের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে।  যার মধ্যে চারটি সরকারি হাসপাতাল থেকে এইডস আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে ওষুধ সরবরাহ করা হয়।

এইডস নিয়ে কাজ করেন, এমন একটি সংগঠন ‘আশার আলো সোসাইটির’ পরিচালক হাবিবা আক্তার জানান, দাতা সংস্থাগুলোর কিছু সংখ্যক বাংলাদেশে এই সংক্রান্ত অর্থায়ন বন্ধ করে দিয়েছে। এখন সরকারি হাসপাতালে এই ব্যাপারে কাজ করছে। এর বেশি আর কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

এইডসবিষয়ক আরেকটি সংগঠন ‘মুক্ত আকাশ বাংলাদেশ’। এই সংগঠনটি পাঁচটি কেন্দ্রে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে এই রোগী সনাক্ত করে।

জাতিসংঘের এইডস বিষয়ক শাখার তথ্য মতে, সারা বিশ্বে তিন কোটি ওপর মানুষ এইডস আক্রান্ত। ২০১৪ সালে ২০ লাখ প্রাপ্ত বয়স্ক ও শিশু এইডস আক্রান্ত হয়েছে। ২০০০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত এন্টি রেট্রোভাইরাল ট্রিটমেন্টের মাধ্যমে ৭০ লাখ ৮০ হাজার এইডস আক্রান্ত মানুষকে বাঁচানো গেছে। ২০১৪ সালে দুই লাখ ২০ হাজার শিশু নতুন করে এইডস আক্রান্ত হয়। ২০১৪ সালের এন্টি রেট্রোভাইরাল ট্রিটমেন্টের মাধ্যমে ১০ লাখ ৪০ হাজার শিশু সুস্থ হয়েছে। ২০১৪ সালে এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে তিন লাখ ৪০ হাজার মানুষ নতুন করে এইডস আক্রান্ত হয়। ২০০০ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত নতুন করে আক্রান্ত হওয়ার অনুপাতে যা ৩১ শতাংশ কম।

এইচআইভি নিয়ে কাজ করে জাতিসংঘের সংস্থা ইউএনএইডস ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলেছে, এশিয়ার দেশগুলোতে প্রাণঘাতী এইচআইভিতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় বাংলাদেশের অবস্থা ১০ম। তালিকায় শীর্ষে আছে ভারত। এই পর্যন্ত বিশ্বে প্রায় ৩৫ মিলিয়ন মানুষ এই মরণঘাতি রোগে মৃত্যুবরণ করেছে।

-জেডসি