ঢাকা, শনিবার ২৭, নভেম্বর ২০২১ ১৯:৫০:২৭ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
পঞ্চম ধাপে ৭০৭ ইউপি নির্বাচন ৫ জানুয়ারি ওরা গুলি করে মারতে পারত, তাহলে এত কষ্ট হতো না : আবরারের মা লঘুদণ্ডও বাতিল হলো কুড়িগ্রামের সেই সাবেক ডিসি সুলতানার অবস্থার অবনতি, আবারও আইসিইউতে রওশন এরশাদ টঙ্গীতে আগুনে বস্তির হাজারের বেশি ঘর পুড়ে ছাই জন্মহার বাড়াতে মাতৃত্বকালীন ছুটি বাড়াচ্ছে চীন

কমেছে সবজির দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১২:৪৪ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০২১ রবিবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

এক সপ্তাহের ব্যবধানে অর্ধেকে নেমেছে দিনাজপুরের হিলি বাজারের প্রতিটি শীতকালীন সবজির দাম। দাম কমে যাওয়ায় স্বস্তি পাচ্ছেন নিম্ন আয়ের মানুষেরা। উৎপাদন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও সবজির দাম কমে আসবে বলে ধারণা করছেন সবজি ব্যবসায়ীরা।

রোববার (২১ নভেম্বর) সকালে হিলির সবজি বাজার ঘুরে দেখা যায়, সপ্তাহখানেক আগের চেয়ে প্রতিটি সবজির দাম প্রায় অর্ধেক কমে গেছে। ৪০ টাকার বেগুন এখন বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা কেজি দরে, শিমের কেজি ছিলো ৮০ টাকা কেজি, এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি, ৪০ টাকার মুলা এখন ২৫ টাকা, ১০০ টাকার করলা বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, ৩৫ টাকার পটল ৩০ টাকা, ৬০ টাকার ফুলকপি ৫০ টাকা, ৩০ টাকার বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা কেজি দরে, ২০ টাকার পেঁপে ১০ টাকা কেজি, ৫০ টাকার শসা ২৫ টাকা কেজি, ৬০ টাকার ঢেঁড়স ৫০ টাকা কেজি ও ২০ টাকার আলু এখন বিক্রি হচ্ছে ১৬ টাকা কেজি দরে।

এদিকে, ৮০ থেকে ১০০ টাকার কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা কেজি দরে। আবার ৪০ টাকার পেঁয়াজ বর্তমান দাম কমে তা বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা কেজি দরে।

হিলি বাজারের সবজি ব্যবসায়ী সোহেল রানা জানান, বাজারে বর্তমান সব ধরনের শীতকালীন সবজি উঠে গেছে, পাশাপাশি দামও কমতে শুরু করেছে। প্রথম দিকে প্রতিটি সবজির দাম ছিলো কয়েকগুণ। দাম বেশি থাকাই অনেকেই কিনতে পারতো না, তবে দাম কম হওয়ায় সবাই কম বেশি শীতকালীন সবজি কিনতে পারছেন।

হিলি বাজারে সবজি কিনতে আসা ভ্যানচালক নাজমুল হোসেন  বলেন, ‘আজ বাজার করতে এসে স্বস্তি পাচ্ছি। কিছুদিন আগে নতুন তরকারি কিনা অনেক মুশকিল ছিলো। দাম বেশি হওয়ার জন্য কিনতে পারিনি, তবে আজ মনের মতো সব সবজি নিলাম।’


শিম চাষি আতাউর রহমান বলেন, ‘প্রতিবছর আমি আইগর শিম চাষ করে থাকি, ৮ শতকের মধ্যে আমার তিনটি শিমের ঝাঁঙলা আছে। আগাম শিম চাষ করে আমি অনেক লাভবান হয়েছি। প্রথমে আমি ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজি বাজারে দাম পেয়েছি। বর্তমান সব ঝাঁঙলা থেকে শিম উঠতে শুরু করেছে, তাই দামও কমে গেছে।’

হিলি বাজারের পাইকারি সবজি ব্যবজি ব্যবসায়ী শাহিনুর ইসলাম  বলেন, ‘হিলি পার্শ্ববর্তী বিরামপুর বাজার থেকে আমরা সব সবজি গৃহস্থর নিকট থেকে কিনে আনি। এক সপ্তাহ আগে কৃষকদের কাছে অনেক দামে সব সবজি কিনে আনতাম, বেশি দামে কিনে তা বেশি দামে পাইকারি দিতাম। এবার এসব এলাকায় সবজি চাষ অনেক ভাল হয়েছে এবং দামও কমতে শুরু করেছে। আশা করছি কদিনের মধ্য সবজির দাম আরও কমে যাবে।’