ঢাকা, রবিবার ২১, জুলাই ২০১৯ ১৬:৪১:৪৯ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
শিরোনাম
অনির্দিষ্টকাল ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা ঢাবি শিক্ষার্থীদের প্রিয়াকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কড়া নির্দেশনা ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহার নালিশ ‘ছোট্ট ঘটনা’: আইনমন্ত্রী প্রিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা নেয়নি আদালত রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক কূটনীতি অনুসরণ করুন: প্রধানমন্ত্রী মিন্নিকে জামিন দেননি আদালত

নারী উদ্যোক্তাদের ঋণসীমা ১ কোটি টাকা করার সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৭:২৭ পিএম, ২ মার্চ ২০১৯ শনিবার

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের ঋণসীমা ২৫ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ কোটি টাকা করার সুপারিশ করেছে ওমেন এন্টারপ্রিনিউয়ার্স নেটওয়ার্ক ফর ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন (ওয়েন্ড)। একই সঙ্গে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যাংকসমূহের হেল্প ডেক্স আরো কার্যকর করার আহবান জানিয়েছে।

আজ শনিবার রাজধানীর পল্টনে ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে নারী উদ্যোক্তাদের সংগঠন ওয়েন্ড এই এসব সুপারিশ তুলে ধরে। এতে লিখিত বক্তব্য দেন সংগঠনের প্রেসিডেন্ট ড.নাদিয়া বিনতে আমিন।

তিনি বলেন, সরকার নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সহজ শর্তে ও কম সুদে ঋণ প্রদানের নীতিমালা প্রণয়ন করলেও নারী উদ্যোক্তারা এ সুবিধা পাচ্ছেন না। ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে পদ্ধতিগত জটিলতা, নানাবিধ শর্তের বেড়াজাল ও উচ্চ সুদের কারণে প্রতিনিয়ত পুঁজি সংগ্রহে হিমশিম খাচ্ছে। তাই বিদ্যমান নীতিমালা আরো সহজ করলে নারী উদ্যোক্তারা উপকৃত হবেন।

তিনি অভিযোগ করেন ব্যাংকগুলোতে নারী উদ্যোক্তা ডেক্স থাকলেও তেমন সহযোগিতা নারী উদ্যোক্তারা পাচ্ছেন না। ফলে ব্যবসা বাণিজ্যে পিছিয়ে যাচ্ছেন নারীরা। তাই এই হেল্প ডেক্স কার্যকর করার প্রয়োজন।

নারী উদ্যোক্তাদের দ্বারা পরিচালিত বছরে ৫০ লাখ টাকা টার্নওভার রয়েছে এমন প্রতিষ্ঠানের শূন্য হারে ভ্যাট অব্যহতির দাবি জানিয়ে ড. আমিন বলেন, দেশের নারী উদ্যোক্তাদের সিংহভাগই ক্ষুদ্র ও মাঝারি মানের। ফলে উচ্চ হারে ভ্যাট আরোপ করা হলে তারা প্রতিযোগিতামূলক বাজারে টিকে থাকতে পারবে না।

তিনি নতুন ভ্যাট আইনে তিনটি স্তরে সর্বোচ্চ পাঁচ শতাংশ হারে ভ্যাট নির্ধারণের সুপারিশ করেন। এছাড়া আয়করের ক্ষেত্রে নারীদের জন্য করমুক্ত আয় সীমা ৩ লাখ টাকা থেকে বাড়িযে ৫ লাখ টাকায় উন্নীত করার দাবি জানান তিনি।

ড. আমিন বলেন, বাংলাদেশে করপোরেট করহার এশিয়া কিংবা বিশ্বের যেকোন দেশের তুলনায় বেশি। এ কারণে নারী উদ্যোক্তারা বড় ব্যবসায় সম্পৃক্ত হতে পারছেন না। 

তিনি করপোরেট করহার সব পর্যায় থেকে আগামী তিন অর্থবছরে পর্যায়ক্রমে ৫,৭ ও ১০ শতাংশ হারে কমানোর প্রস্তাব করেন।

তিনি নারী উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ প্রদানে প্রত্যোক বিভাগে অন্ততঃ একটি করে বিশেষায়িত নারী উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠা এবং ব্যবসায়িক কার্যক্রমে সহযোগিতার জন্য সাপোর্ট সেন্টার করার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জিসান আক্তার চৌধুরী, সিনিয়র সহ-সভাপতি শামীমা লাইজু, সহ-সভাপতি আয়শা সিদ্দিকা, কোষাধ্যক্ষ আনোয়ারা সিদ্দিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।