ঢাকা, বুধবার ১০, আগস্ট ২০২২ ৮:১৮:২০ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
বঙ্গমাতা স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুকে সহযোগিতা করেছেন করোনায় একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৯ বিপদে সহানুভূতিশীল মনে একে অপরকে সাহায্য করে যেতে হবে মাদারীপুরে নারীর মরদেহ উদ্ধার সারা দেশে বেড়েই চলেছে নিত্যপণ্যের দাম হোসেনি দালান থেকে শুরু হলো তাজিয়া মিছিল আশুরার মহান শিক্ষা আমাদের সবার জীবনে প্রতিফলিত হোক: রাষ্ট্রপতি

মূল্যবোধের অবক্ষয়

তসলিমা নাসরিন | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০১:০৬ পিএম, ৬ জানুয়ারি ২০২২ বৃহস্পতিবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

১. একটা সময় ছিল, বাচ্চারা নিজেরাই ইস্কুলে যেত, নিজেরাই ইস্কুল থেকে বাড়ি ফিরতো। অভিভাবকের সাহায্যের দরকার পড়তো না। আমি ছিলাম মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে। আমাকে বাড়ির কেউ ইস্কুলে নিয়ে যায়নি, ইস্কুল থেকে ফেরতও আনেনি। ইস্কুলে পায়ে হেঁটে অথবা রিক্সায় চড়ে যেতাম। সঙ্গে পাড়ার ইস্কুলযাত্রী ছেলেমেয়ে থাকতো। এখন তো দেখি ইস্কুলের ছেলেমেয়েদের ইস্কুলে দিয়ে আসে অভিভাবকেরা, নিয়েও আসে। এত সাবধানতা, তারপরও শুনি শিশুধর্ষণ বাড়ছে। শিশুধর্ষণের খবর শুনতে শুনতে এখন কোনও শিশুকে স্বজন দ্বারা বেষ্টিত না দেখলে আশঙ্কা হয়। আগে আমরা ছ’সাত বছর বয়সে মামা কাকাদের সংগে ঘুরতে বেরিয়ে পড়তাম। এখন মামা কাকারা ছ’সাত বছরের শিশুকে নিয়ে বাড়ির বাইরে বেরোলে আশঙ্কা হয়। মামা কাকারা শিশুকে ধর্ষণ করার পর হত্যা করে পালিয়ে গেছে, এমন খবর আজকাল শুনতে হয়। বয়স্ক পড়শিরাও একই কীর্তি করছে। কাকে বিশ্বাস করবে মানুষ? শিশুরা কি বাবার কোলে নিরাপদ? না, বাবাও আপন কন্যাকে ধর্ষণ করে। কোনও বাবাকে যখন দেখি তার কন্যাকে জড়িয়ে ধরে আদর করছে, সন্দেহ হয়। সত্যি হয়। খবরের কাগজে কি পড়ি না কোনও কোনও বাবা কন্যাকে ধর্ষণ করে? বছরের পর বছর ধর্ষণ করছে বাবা? পৃথিবীটা বড় কুৎসিত হয়ে গেছে। বাবার কাছেই যদি কন্যা নিরাপদ নয়, তবে কন্যা কোথায় নিরাপদ? সত্যি কথা বলতে কী, কন্যা কোথাও নিরাপদ নয়। ঘরে বাইরে সর্বত্র কন্যা বিপদের মুখে। যে কোনও সময় যে কেউ, যে কোনও কিশোর, যুবক, বৃদ্ধ তাকে ধর্ষণ করতে পারে, তাকে গণধর্ষণ করতে পারে, তাকে অবশেষে খুন করতে পারে। এসব দুর্ভাবনা অমূলক নয়, অমূলক নয়, কারণ এইসব ঘটছে।

বাংলাদেশের মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র জানিয়েছে, গত বছর ২০২১ সালে সারাদেশে ধর্ষণ ও সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন মোট ১ হাজার ৩২১ জন নারী। এর মধ্যে ধর্ষণ পরবর্তী হত্যার শিকার হয়েছেন ৪৭ জন এবং ধর্ষণের পর আত্মহত্যা করেছেন ৯ জন। পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন মোট ৬৪০ নারী। এদের মধ্যে যৌতুকের জন্য নির্যাতনের শিকার হয়েছেন মোট ২১০ জন। নির্যাতনের কারণে মারা যান ৩৭২ জন এবং আত্মহত্যা করেন ১৪২ জন। শিশু অধিকারের ক্ষেত্রেও ২০২১ সালের চিত্র ছিল হতাশজনক। মোট ৮৫২টি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে, হত্যা করা হয়েছে ৫৯৬টি শিশুকে। দেশে ধর্ষণের শিকার এক হাজার ২৩৫ জনের মধ্যে ৬২৯টি কন্যাশিশু। এর মধ্যে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার ১৭৯ জন, যার মধ্যে ৬২টি কন্যাশিশু। অন্যদিকে ২২টি কন্যাশিশুসহ ধর্ষণের পর হত্যার শিকার হয়েছেন ৩১ জন। ধর্ষণের কারণে আত্মহত্যা করেছেন সাতজন। এ ছাড়াও ধর্ষণচেষ্টার শিকার হয়েছেন ১৫৫ জন, এর মধ্যে ৯৩টিই কন্যাশিশু। যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন ৬২টি কন্যাশিশুসহ ৯৫ জন।

দেশে সত্যিকার গণতন্ত্র না থাকলে মতপ্রকাশের অধিকার থাকে না। তখন বিরোধী রাজনৈতিক দলের ওপর আক্রমণ বাড়ে, সাংবাদিক এবং মুক্তচিন্তকদের ওপর অত্যাচার বাড়ে, বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড বাড়ে। কিন্তু পুরুষতন্ত্র পুরু হলে নৈতিকতার অবক্ষয় বাড়ে, নৈতিকতার অবক্ষয় বাড়লে নারী নির্যাতন বাড়ে।
ধর্ষকরা আজকাল প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের চেয়েও বেশি পছন্দ করছে শিশু। অবশ্য ৬ মাস বয়সী শিশু থেকে ৮০ বছর বয়স পর্যন্ত মহিলাদের তারা ধর্ষণ করছে, কাউকে রেহাই দিচ্ছে না। সকল ধর্ষণই ভয়াবহ। তবে শিশুধর্ষণ সবচেয়ে বেশি ভয়াবহ। শিশু দুর্বল, শিশু জানে না ধর্ষণ কাকে বলে, ধর্ষণের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে সে পারে না। ধর্ষণের কারণে শিশুর মৃত্যু হওয়ার আশংকা প্রাপ্তবয়স্কাদের চেয়ে বেশি। পৃথিবীতে একটা নিয়ম ছিল, কোনও দুর্ঘটনা ঘটলে শিশু এবং নারীকে সবার আগে বাঁচানো হতো। সেই নিয়মটি এখন সম্পূর্ণই বদলে গেছে। শিশু এবং নারীকে এখন সবার আগে মারা হয়। বধূ হত্যায় পুরুষের আপত্তি নেই, এক বধূ গেলে আরেক বধূ মিলবে। অনাঘ্রাতা কুমারী মেয়ের স্বাদ পাওয়ার জন্য যুবক বৃদ্ধ সকলের জিভ বেরিয়ে আসে। এই বেরিয়ে আসা জিভকে কখনও তিরস্কার করা হয় না। বরং সমর্থন করা হয় এই বলে যে পুরুষকে কাম ক্রোধ একটু বেশিই দিয়েছেন ঈশ্বর। ঈশ্বরের দানের বিরুদ্ধে কারও প্রতিবাদ করার অধিকার নেই। বৃদ্ধদের হাতে চিরকাল সম্প্রদান করা হয়েছে কচি মেয়ে। কচি থেকে কচিতর, কচিতর থেকে কচিতম- হাত বাড়াতে বাড়াতে দুধের বাচ্চার যৌনাঙ্গে হাত দিয়েছে পুরুষেরা। আমি আজও বুঝি না, কী করে দুধের বাচ্চাকে বলাৎকার করার জন্য শরীরে এবং মনে তৈরি হয় ওরা? কী করে ওদের যৌন উত্তেজনা জাগে? পুরুষের শুক্রাণু মানবজন্মে সাহায্য করে বটে, এর মানে কিন্তু এই নয় যে, শুক্রাণু নির্গত করলেই পিতা হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করা যায়।

কিছু পুরুষ হয়তো জন্মগতভাবে শিশুকামী। শিশুকামী মস্তিষ্ক নিয়েই জন্ম হয়েছে তাদের। তারাও কিন্তু পারে হাত গুটিয়ে নিতে, পারে নিজেকে শাসন করতে। কোনও শিশুর অনিষ্ট না করতে চাইলে তাদের পক্ষেও সম্ভব কোনও শিশুর অনিষ্ট না করা। তোমার যৌন উত্তেজনা জাগছে, তাই বলে তুমি কিন্তু কারও ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ার অধিকার রাখো না যতক্ষণ না সে তোমার ঝাঁপিয়ে পড়াকে সাদরে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে। একটি শিশু কখনও আমন্ত্রণ জানায় না। কারণ শিশুর যৌনবোধ নেই। যৌনবোধ যদি কিছু শিশুর থাকেও, তাহলেও শিশুকে প্রতারণা করার অধিকার কোনও প্রাপ্তবয়স্কের নেই। নিজেকে মন্দ কাজ থেকে আমরা সব সময় সংবরণ করছি। আমাদের হাত কি নিশপিশ করে না একে ওকে পেটাতে, চাবকাতে, গায়ের চামড়া তুলে ফেলতে? ইচ্ছে করে। কিন্তু আমরা নিজের অবাধ ইচ্ছের লাগাম টেনে ধরতে জানি। অন্যের অনিষ্ট করবো না, এমন কী দোষীরও অনিষ্ট করবো না, দেশের বিচারব্যবস্থার কাছে আমরা বিচারের ভার ছেড়ে দিই। কেউ কেউ ঈশ্বরের ওপর ছেড়ে দেয় বিচারের দায়িত্ব। শুধু শিশুকামী নয়, সমকামী, উভকামী, বিষমকামী বা অসমকামী, কারও অধিকার নেই কাউকে যৌন হেনস্থা, যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণ করার।

আমাদের সমাজের বড় সমস্যা এই, নীতিমান, আদর্শবান, চরিত্রবান হওয়ার, নারীর সমানাধিকার মানার উপদেশ যত না দেওয়া হয় ছেলেশিশুদের, তার চেয়ে বেশি দেওয়া হয় ক্লাসে প্রথম হওয়ার উপদেশ, ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার উপদেশ, যে করেই হোক ধনী হওয়ার উপদেশ। ছেলেশিশুদের আস্কারা দিয়ে অপদার্থ বানায় অভিভাবকরা। ছেলেদের অপদার্থ বানাবার সংস্কৃতিটা যতদিন বিদেয় না হচ্ছে সমাজ থেকে, ততদিন নারী নির্যাতন, মেয়েশিশু নির্যাতন কমবে না, বরং বছর বছর বাড়বে।

মেয়েশিশুরা মাঠে খেলবে, রাস্তায় হাঁটবে, একা ইস্কুলে যাবে, মাঠ ঘাট হাট সব নিরাপদ তাদের জন্য। কিশোরীরা তাদের যেখানে খুশি ঘুরে বেড়াবে, ঘরে বাইরে সর্বত্র তারা নিরাপদ। তরুণী, যুবতী, প্রবীণা, বৃদ্ধা- সবার জন্য প্রতিটি অঞ্চল, প্রতিটি গ্রাম, প্রতিটি শহর নিরাপদ। কবে আসবে সে দিন? কবে আসবে সে দিন যে দিন কোনও মেয়ের বলার দরকার হবে না, হিজাব বা বোরখা পরলে যৌন নির্যাতন থেকে বাঁচা যায়? যৌন নির্যাতন থেকে তাদের বাঁচাবে হিজাব বা বোরখা নয়, বাঁচাবে পুরুষের নৈতিকতা আর সততা।

অনেকে নিজেদের অপকর্ম এবং দুষ্কর্মের পক্ষে বলতে গিয়ে জোরগলায় বলে, পাশ্চাত্যে অনেক বেশি শিশুধর্ষণ ঘটে। যেন পাশ্চাত্যে যেহেতু অনেক বেশি শিশুধর্ষণ ঘটে, প্রাচ্যেও শিশুধর্ষণ ঘটলে কোনও ক্ষতি নেই। পাশ্চাত্যে অনেক বেশি শিশুধর্ষণ ঘটে না, পাশ্চাত্যে একটি ঘটনা ঘটলে তোলপাড় শুরু হয়, দাবানলের মতো খবর ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। প্রাচ্যে শিশুধর্ষণ, শিশুহত্যা, নারীধর্ষণ, নারীহত্যা চুপচাপ ঘটতে থাকে। পাঁচশ’ ঘটনার একটি ঘটনা সামনে আসে কিনা সন্দেহ। ভুলে গেলে চলবে না, পাশ্চাত্যে শুধু সাদা ককেশিয়ানদের বাস নয়, হলুদ বাদামি কালো অর্থাৎ এশিয়া, আফ্রিকার লোকদেরও বাস বটে, তাদের নারীবিরোধী পুরুষতান্ত্রিক সংস্কৃতি পাশ্চাত্যেও তারা ঘটা করে পালন করে।

শিশুধর্ষণ বাংলাদেশে বাড়ছে, নারীনির্যাতন বাড়ছে, এই তথ্যটি ধামাচাপা দিয়ে বাংলাদেশের লোকেরা, এমনকী সরকারি নেতারাও গর্ব করে বলেন দেশের অর্থনীতির উন্নতি হচ্ছে। উন্নতি হচ্ছে সুতরাং বগল বাজাও, আনন্দ করো। তাই কি হওয়া উচিত? অর্থনৈতিক উন্নতি দিয়ে ছাই হবে যদি জনগণের নৈতিক উন্নতি না হয়। যতক্ষণ নারী এবং শিশুর জন্য দেশের প্রতিটি ইঞ্চি মাটি নিরাপদ না হয়, ততক্ষণ এই মাটি নারী বা শিশুর দেশ নয়। যে মাটিতে জন্মেছে মানুষ, সে মাটি যদি দেশ হওয়ার যোগ্যতা হারায়, তবে এ কাদের দোষ? তাদের দোষ যারা রাষ্ট্র, সমাজ এবং শিক্ষা ব্যবস্থাকে এমনভাবে গড়েছে যে ব্যবস্থাগুলো পুরুষকে ধর্ষক বানায়, আর নারীকে পুরুষের শিকার বানায়। এই ব্যবস্থাগুলোয় অর্থনৈতিক উন্নতি ঢাললে তা চিকচিক করে বটে, কিন্তু কান পাতলেই শোনা যায় নিপীড়িত নারীর আর্তনাদ। যে বছর শুরু হলো, সে বছরের শেষে আশা করছি খবর হবে এ বছর কোনও শিশুকে ধর্ষণ করা হয়নি, কোনও নারী যৌন-নির্যাতনের শিকার হয়নি।

২. মেয়েদের সমানাধিকার তো এখনো স্বপ্ন, অধিকারই যেখানে জোটে না। বৈষম্যহীন পরিবেশে বড় হওয়ার অধিকার প্রতিটি মেয়েরই আছে, কিন্তু প্রতিটি মেয়েই তার প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত। লেখাপড়া করার, ঘরের বাইরে বের হওয়ার, যেখানে খুশি সেখানে যাওয়ার, নিরাপত্তা পাওয়ার, অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার, নিজের পছন্দে নিজের জীবনযাপন করার, নিজের জীবনের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়ার অধিকার ক’টা মেয়ে পায়? সব দেশেই মেয়েরা নির্যাতিত হচ্ছে শুধু মেয়ে বলেই। মেয়েদের খাবার কম দেওয়া, মেয়েদের কথা বলতে না দেওয়া, মেয়েদের হাসতে না দেওয়া, মেয়েদের চড়-থাপ্পড়, কিল-ঘুষি, লাথি-গুঁতো দেওয়া-এগুলো সংসারে ডালভাতের মতো স্বাভাবিক। শারীরিক নির্যাতন করা, কেরোসিন ঢেলে শরীরে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া, হত্যা করে আবর্জনার স্তূপে ফেলে রাখা এগুলো তো আছেই, সবচেয়ে বেশি যে নির্যাতন মেয়েদের করা হয়, সেটি যৌন নির্যাতন। আগে তো ভাবতাম মেয়েরা ঋতুবতী হওয়ার পর মেয়েদের প্রতি পুরুষের যৌন আকর্ষণ জন্মায়, ঠিক যেমন মেয়েদেরও পুরুষের প্রতি আকর্ষণ জন্ম নেয়। কিন্তু চার-পাঁচ বছরের শিশু এমনকি এক বছর বয়সী শিশুর প্রতি কী করে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের এই আকর্ষণটি জন্মায়? এত যে শিশু ধর্ষণ হচ্ছে চারদিকে, এগুলো যে শিশুকামীরা করছে তা কিন্তু নয়। শিশু-ধর্ষকদের অধিকাংশই বিবাহিত, সন্তানাদি আছে, প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের প্রতিও তাদের যৌন আকর্ষণ কিছু কম নয়। যৌন আকর্ষণ অন্যায় নয়। ধর্ষণ অন্যায়। শিশুকামীদের অধিকার নিয়ে আজকাল পাশ্চাত্যের দেশগুলো সরব হচ্ছে। শিশুদের প্রতি শিশুকামীদের যে যৌন আকর্ষণ সেটি তাদের মস্তিষ্কে, সেটি নিয়েই তারা জন্মেছে। সুতরাং এই অনাকাক্সিক্ষত আকর্ষণের জন্য তারা নিজেরা দায়ী নয়। শিশুকামকে চিকিৎসা দিয়ে দমন করা যায়, কিন্তু সম্পূর্ণ নির্মূল করা যায় না। তাদের আকর্ষণ নিয়ে তারা থাকুক, কিন্তু শিশুদের কোনও ক্ষতি না করুক, শিশুদের দিকে হাত না বাড়াক। তাহলেই তো সমাজের কোনও ক্ষতি হচ্ছে না। সমাজের ক্ষতি বরং তারাই বেশি করছে যাদের মস্তিষ্কে কোনও রোগ নেই, তারা সুস্থ মস্তিষ্কে ঠান্ডা মাথায় নারীর প্রতি অসম্ভব ঘৃণা আর বিদ্বেষ ধারণ করে একের পর এক অপরাধ করে যাচ্ছে।

এবছর জানুয়ারির ২ তারিখে চট্টগ্রামের জালালাবাদ এলাকায় প্রতিবেশী এক শিশুকে বাড়িতে একা পেয়ে চকলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ করে ৫০ বছর বয়সী মোতালেব। এর কিছুদিন আগে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার মান্দারতলী গ্রামে ৮ বছর বয়সী কন্যা শিশুকে নির্জন ঘরে জোর খাটিয়ে ধর্ষণ করেছে ৩০ বছর বয়সী মো. নাছির চৌকিদার। মেহেরপুরের গাংনীতে ৫ বছর বয়সী একটি শিশুকে ধর্ষণ করেছে বয়স্ক মোখলেসুর রহমান। দিনাজপুরের বিরলে ৭ বছর বয়সী শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা হয়েছে। শিশুদের ধর্ষণের চেষ্টা, ধর্ষণ, ধর্ষণের পর খুন ঘটেই চলেছে।

সেদিন শুনি একটি গরুকে ধর্ষণ করা হয়েছে। নারী ধর্ষণ, কিশোরী ধর্ষণ, শিশু ধর্ষণের পাশাপাশি গরুধর্ষণ চলছে। নিরীহ পশুপ্রাণীদেরও বাদ দেয় না কিছু বদ পুরুষ। নীতি আদর্শ সমস্তই লোপ পেয়েছে! যত বেশি ধর্ম বাড়ছে দেশে, তত বেশি অনাচার বাড়ছে। অথচ আমরা এরকমই শিখেছি ছোটবেলা থেকে, যত বেশি ধর্ম বাড়বে, তত বেশি অনাচার কমবে। আমি হিসেব মেলাতে পারি না। ধর্ম কি তবে মন্দ লোকরাই বেশি পালন করে? নাকি মন্দ কাজ করার জন্য ওপরে একটা ধার্মিকের লেবাস লাগানো হয়, যেন কারও সন্দেহভাজন হতে না হয়? আমার তো মনে হয়, ধার্মিকের লেবাস দেখলেই আজকাল ধর্ষক আর খুনি বলে অনেকের সন্দেহ হয়।

আমার মা ছিলেন ধার্মিক। আমার নানাও। ধর্মের অর্থ ওঁরা বুঝতেন কারও অনিষ্ট না করা, কাউকে কষ্ট না দেওয়া, বরং অন্যের দুঃখ-কষ্টে পাশে দাঁড়ানো, অন্যের অভাব দূর করা। ছোটবেলায় ওঁদের মতো অনেক ধার্মিকের দেখা আমি পেয়েছি। কিন্তু এ বেলায় এসব কী দেখছি দেশে? আগে ধর্ম মানে মানুষ বুঝতো সহিষ্ণুতা, উদারতা, মানবতা। আর এখন ধর্ম মানে হিজাব, হিংস্রতা, রমজান মাসে বিশাল খানাপিনা, ঈদে গরু জবাইএর ধুম, ধর্ম মানে মানুষ কুপিয়ে মারা, দিন দুপুরে গরুর মতো জবাই করে ফেলে রাখা। ভাগ্যিস আমার নানা বেঁচে নেই, মা’ও বেঁচে নেই। বেঁচে থাকলে ধর্মের এই রূপ দেখে ওঁরা নিশ্চয়ই খুব কষ্ট পেতেন। আসলে ধর্ম যেমন ছিল, তেমনই আছে। মানুষ পাল্টেছে। বর্বর লোকরা ধর্মকে বর্ম হিসেবে রেখে যত বীভৎস হতে পারে হচ্ছে।

ধর্মকে আবার মানবিক করার সময় এসেছে। মসজিদের খুতবায়, মাদ্রাসার ক্লাসঘরে, ওয়াজ মাহফিলে কারও মগজধোলাই হচ্ছে কি না লক্ষ্য রাখতে হবে। মাদ্রাসার শিক্ষকদের, ওয়াজিদের চোখে চোখে রাখতে হবে যেন তারা ছেলেদের জঙ্গি হিসেবে তৈরি না করে, যেন শিশুদের ধর্ষণ না করে। ধর্ম করতে এসে অধর্ম করলে চলবে কেন!

দেশে দিন দিন দুঃসংবাদের পাহাড় গড়ে উঠছে। কী ভালোই না হতো যদি দেশটি থেকে ধর্ষণের খবর না আসতো। এখনও মেয়েকে গণধর্ষণ করা হচ্ছে বাংলাদেশে। বাসের ভেতর। ভারত থেকে ভালো অনেক কিছু তো শেখার আছে। শিখলো শিখলো গণধর্ষণটাই শিখলো? যে লোকগুলো মেয়েটাকে ধর্ষণ করেছে, ওদের জিজ্ঞেস করুন, ওরা ধর্মে বিশ্বাস করে কি না, সবাই, আমি নিশ্চিত, বলবে, করে। আল্লাহকে মানে? বলবে, মানে। তোমরা কি নাস্তিক? জিজ্ঞেস করুন। ওরা ফুঁসে উঠবে। এত বড় অসম্মান! আমাদের নাস্তিক বললো? ওরা তীব্র প্রতিবাদ করবে, বলবে যে ওরা আস্তিক। মাঝে মাঝে মনে হয়, নাস্তিক হওয়ার পথই বোধহয় সহিষ্ণু হওয়ার, উদার হওয়ার, মানবিক হওয়ার সঠিক পথ।

                লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।