ঢাকা, রবিবার ২৩, ফেব্রুয়ারি ২০২০ ৪:৪৭:৪৫ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
নারী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ: ভারতের কাছে হার অজিদের দ. কোরিয়ায় করোনায় আক্রান্ত ৩৪৬, নিহত ২ সুবর্ণচরে সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুল শিক্ষিকা নিহত ঢাকার বাতাসের মান এখনও ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ নারীদের যাতায়াত ব্যবস্থাকে আরামদায়ক করছে উবার

স্টেশনে নামলেন মা, সন্তানকে নিয়ে চলে গেল ট্রেন

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৯:২৯ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২০ বৃহস্পতিবার

ভৈরব বাজার জংশন। ফাইল ছবি

ভৈরব বাজার জংশন। ফাইল ছবি

আট বছরের সন্তান সিফাতকে নিয়ে ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশে কিশোরগঞ্জের গচিহাটা স্টেশন থেকে ট্রেনে চড়েছিলেন মা লিপি বেগম (২৮)। পথে ভৈরব বাজার জংশনে তিনি মোবাইলে রিচার্জ করতে নামলে শিশু সিফাতকে নিয়েই ছেড়ে দেয় ট্রেন।

বুধবার সন্ধ্যায় এমন ঘটনা ঘটে। চোখের সামনে সন্তানকে নিয়ে ট্রেনের ছুটে চলার দৃশ্য দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন লিপি।

মা লিপির আহাজারি করে বলেন, ‘বুঝতে পারিনি, এত তাড়াতাড়ি ট্রেন ছেড়ে দেবে। আমাকে রেখে আমার ছেলেকে নিয়ে ট্রেন চলে গেল। এমন ভুল আর করব না।’

পরে স্টেশনমাস্টার ও রেলওয়ে পুলিশের সহযোগিতায় ওইদিন রাতেই শিশু সিফাতকে নরসিংদী স্টেশন থেকে উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, আন্তঃনগর কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনটি গতকাল বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে ভৈরব জংশনে পৌঁছায়। ২০ মিনিট পর ৬টা ৫ মিনিটে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশে ভৈরব ছাড়ে। সাধারণত কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস এই জংশনে ইঞ্জিন ঘুরিয়ে দিক পরিবর্তন করে। এতে বেশ কিছু সময় লাগে বলে যাত্রীরা অনেক সময় ট্রেন থেকে নেমে জরুরি কাজ সেরে নেন।

লিপি বেগমও সে কথা মাথায় রেখেই প্ল্যাটফর্মে নেমেছিলেন। সিট হারানোর ভয়ে সন্তানকে বসিয়ে রেখেছিলেন ট্রেনের কামরাতেই। কিন্তু এর মধ্যেই ট্রেন যে তাকে ছেড়ে চলে যাবে, তা তিনি কল্পনা করতে পারেননি।

ঘটনাটি জানার পর ভৈরব রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যদের কাছে সহযোগিতা চেয়ে বার্তা পাঠান। সন্ধ্যা সাতটার দিকে ট্রেনের খাবারের কোচ থেকে সিফাতকে উদ্ধার করেন নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ফিরোজ আহমেদ।

ফিরোজ আহমেদ বলেন, ‘ভৈরব রেলওয়ে পুলিশের মাধ্যমে বার্তা পাওয়ার পর আমরা ট্রেনে কর্তব্যরত পুলিশদের কাছে বার্তা পাঠাই। তখন তারা শিশুটিকে খুঁজে বের করেন। রাত ১০টার দিকে মা লিপি বেগম এসে সিফাতকে নিয়ে যান।’