ঢাকা, শনিবার ১৪, ডিসেম্বর ২০১৯ ৩:০২:০৯ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস খালেদার জামিন নাকচ নিয়ে বিতর্কের সুযোগ নেই: আইনমন্ত্রী এনআরসি রুখতে আন্দোলনের ডাক দিলেন মমতা গুগল সার্চের শীর্ষ দশে দীপু মনি রোহিঙ্গা গণহত্যা ইস্যুতে শুনানি শেষ; শিগগিরি রায়

স্তন ক্যান্সার নিয়ে জীবনের বার্তা ইডেন জুড়ে

স্বাস্থ্য ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১১:৩৬ এএম, ২২ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

গোলাপী সাজে ইডেন।

গোলাপী সাজে ইডেন।

আজ শুক্রবার কলকাতারই রং বদলে হয়ে যাচ্ছে গোলাপি। গোলাপি বেলুন-ফেস্টুন-আলোয় ভেসে যাবে তিলোত্তমা। এমন ‘পিঙ্ক-বিউটি’-র লক্ষ্য যদি ইডেনে আয়োজিত ভারত-বাংলাদেশ টেস্ট হয়, তবে এই গোলপি রং নির্বাচনের নেপথ্য উপলক্ষ্য অবশ্যই স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতনতার মন্ত্র শেখানো।

ব্রিটিশ ভাবনায় গোলাপি মূলত ‘মেয়েদের রং’ হয়েই ছিল। এই রঙের সঙ্গে ক্যানসারের সম্পর্ক স্থাপন হয়েছে ১৯৯২-এর পর। এই সালকেই ‘দ্য ইয়ার অব রিবনস’ বলে সম্বোধন করেছিল ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস’। এই সাল থেকেই শার্লট হেলের আইডিয়াকে মূলধন করে এইডস ও ক্যানসারের প্রতি সচেতনতা বাড়াতে নানা রঙের ফিতের বহুল প্রচলন শুরু হয়। স্তন ক্যানসারের জন্য নির্ধারিত হয় গোলাপি রঙের ফিতে। তাই স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে গোলাপি রংকেই প্রতীক হিসেবে ধরে নিয়েছে অবশ্যই।

ক্রিকেট ও ক্যানসার, এই দুই সম্পূর্ণ বিপরীত চরিত্রদের মধ্যে নিজের জীবনের বিনিময়ে মিলমিশ ঘটিয়ে দিয়ে গেলেন জেন লুইস। পরিচয়ে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার গ্লেন ম্যাকগ্রার সহধর্মিণী। মাত্র ৪২ বছরে পৌঁছে ২০০৮-এর ২২ জুন স্তন ক্যানসারের কাছে পরাজয় স্বীকার করেন জেন। আর তার এই মৃত্যুই জুড়ে দিয়ে গেল ক্রিকেট ও কর্কটকে। সবুজ মাঠের সঙ্গে মিশিয়ে দিল ব্রেস্ট ক্যানসার সচেতনতার গোলাপি রংকে। শুক্রবার ইডেনে প্যারাট্রুপারে নেমে আসা গোলাপি বলের টেস্টেও জেনের মুখকেই যেন বার বার যেন উস্কে দিচ্ছে স্মৃতির কোঠায়।

সেই লক্ষ্যপূরণে আজ শুক্রবার গ্লোবাল ক্যানসার অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ২০ জন স্তন ক্যানসার জয় করা ব্যক্তি হাজির থাকবেন মাঠে।

সিএবি সচিব অভিষেক ডালমিয়ার কথায়: ‘স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতন করার উদ্দেশেই গোটা ইডেন চত্বর ও তার চারপাশ সেজে উঠবে গোলাপি বেলুন ও গোলাপি আলোয়।

তিনি আরও বলেন, হেভিওয়েট অতিথি থেকে সিএবি কর্তাদের জার্সি, পোশাক, গোলাপির ছোঁয়া থাকবে সর্বত্র। গ্লোবাল ক্যানসার অ্যাসোসিয়েশনের সাহায্য নিয়েই এই ভাবনার পথে এগিয়েছি আমরা।’

আজ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘গ্লোবাল ক্যানসার অ্যাসোসিয়েশন’-এর তরফ থেকে ক্যানসার বিশেষজ্ঞ বিকাশ আগরওয়ালের তত্ত্বাবধানে থাকা ২০ জন ব্রেস্ট ক্যানসার জয়ী ব্যক্তিকে সংবর্ধনা দেবে সিএবি। উপস্থিত থাকবেন সিএবি প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। শুধু তা-ই নয়, টেস্টের দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিনে মধ্যাহ্নভোজের সময় এই ক্যানসারজয়ীরা ক্রিকেটও খেলবেন ইডেনের পিচে।

‘গ্লোবাল ক্যানসার অ্যাসোসিয়েশন’-এর পক্ষে বিভা আগরওয়াল বলেন, ‘সারা বিশ্বেই স্তন ক্যানসার তার ডালপালা মেলছে। আমাদের দেশে প্রতি ৩ মিনিট ২০ সেকেন্ডে এক জন করে মহিলা এই রোগে আক্রান্ত হন। সিবিই (ক্লিনিকাল ব্রেস্ট এগজামিনেশন) টেস্টের মাধ্যমেই মূলত এই ক্যানসার পরীক্ষা করা হয়। প্রতি মাসেই মেয়েদের এই পরীক্ষা করানো প্রয়োজন। প্রতি দিন নিজেদের খেয়াল রাখা উচিত স্তনে কোথাও কোনও লাম্ব বা মাংসপেশী জন্ম নিয়েছে কি না। তেমন হলে তা ক্যানসারে রূপ নেওয়ার আগেই চিকিৎসকের কাছে যাওয়া প্রয়োজন। এই সব সচেতনতার মঞ্চ হিসেবেই আমরা বেছে নিয়েছি ইডেন গার্ডেনকে।’

ক্রিকেট ও ক্যানসারকে এক সারিতে বসিয়ে ভাবার কথা কস্মিনকালেও ভাবেননি কেউ। সেই ভাবনার সৌজন্যে পুরো কৃতিত্বই ম্যাকগ্রা ফাউন্ডেশনের।

২০০৫-এ জেনের মৃত্যুর আগেই স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে এক ফাউন্ডেশন তৈরি করেন ম্যাকগ্রা। সব রকমের চেষ্টা ও চিকিৎসাকে হারিয়ে ২০০৮-এ মৃত্যু হল জেনের। ২০০৯-এ স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত স্ত্রী-র স্মৃতিরক্ষার সঙ্গে এই অসুখ নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে ম্যাকগ্রা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে অনুষ্ঠিত সিডনি টেস্টের তৃতীয় দিনে গোলাপি বল দিয়ে টেস্ট খেলা হল। ক্রিকেট ইতিহাসে যা ‘জেন ম্যাকগ্রা ডে’ নামে খ্যাত। ২০১৫-য় অ্যাডিলেডে অস্ট্রেলিয়া বনাম নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় টেস্টটিই প্রথম গোলাপি বলের দিন-রাতের টেস্ট হিসেবে খ্যাত ক্রিকেট ইতিহাসে। এর পর থেকে স্তন ক্যানসার নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে বার কয়েক গোলাপি বল হাতে তুলে নিয়েছেন ক্রিকেটাররা। দক্ষিণ আফ্রিকায় ওয়ান ডে ম্যাচও অনুষ্ঠিত হয় গোলাপি বলে।

আজ দিন-রাতের টেস্ট ম্যাচে স্তন ক্যানসারকে সঙ্গে নিয়েই জীবনের জয়গান গাইবেন ভারত-বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। আজ দিনটি গোলাপি বিপ্লবের মঞ্চে শুধু প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে দেওয়াই নয়, স্তন ক্যানসারকে পরাজিত করার মন্ত্রও উচ্চারিত হবে সবুজ গালচের ইডেনে।