ঢাকা, মঙ্গলবার ২৪, নভেম্বর ২০২০ ১০:০১:০৫ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

আমাদের মনের যত্ন নিতে হবে: ওয়েবিনারে বক্তারা 

অনলাইন ডেস্ক

উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১১:২১ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০২০ শনিবার

আমাদের মনের যত্ন নিতে হবে: ওয়েবিনারে বক্তারা 

আমাদের মনের যত্ন নিতে হবে: ওয়েবিনারে বক্তারা 

অধ্যাপক ডা. মুহিত কামাল বলেছেন, চাপ মোকাবেলা করতে পারলে আমরা মানসিকভাবে সুস্থ থাকতে পারবো এবং আমাদের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। উন্নত বিশ্বে শতকরা ৫০ ভাগ লোক মানুষিক স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শ পেয়ে থাকে। অথচ বাংলাদেশে শুধুমাত্র ৬ শতাংশ মানুষ এই সেবা পায়। 

তিনি বলেন, আমাদের সুস্থ ও কর্মক্ষম থাকতে হলে দেহ ও মন দুটোকেই সুস্থ রাখতে হবে। আমাদের মনকে চিনতে হবে এবং মনের যত্ন নিতে হবে। 

আজ শনিবার বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক ওয়েবিনারে তিনি এসব কথা বলেন। বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসে ব্রিট, স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ ও ল্যাবএইড হসপিটাল এই বিশেষ অনলাইন আলোচনার আয়োজন করে।

ল্যাবএইড হাসপাতালের মানসিক কাউন্সিলর সানজিদা আফরোজ বলেছেন, মানসিক স্বাস্থ্য শারীরিক স্বাস্থ্যের বাইরে নয়। একটি আরেকটির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই আসুন আমরা সবাই শারীরিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেই। তাহলে আমরা নিজে ভাল থাকতে পারব এবং আশেপাশের মানুষকেও ভাল রাখতে পারব। এর ফলে আমরা আমাদের পারিবারিক সম্পর্কগুলো আর দৃঢ় করতে সক্ষম হব।  

স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর এম শাহজাহান মিনা ছাত্রদের শান্ত শৃঙ্খল জীবন ধারার উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তিনি পারিবারিক শিক্ষা এবং মা, বাবা ও অভিভাবকের দায়িত্বের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। 

ল্যাবএইড ফার্মাসিউটিক্যাল এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর গোলাম রাহমান বলেছেন, কর্মক্ষেত্রে মানুষের মনের প্রভাবের উপর তিনটি বিষয় বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। বিষয়গুলো হলো:  মানসিক চাপ, পরিবর্তণশীল পরিবেশ ও অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা।

বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেছেন, মিডিয়ার দায়িত্ব হল মানুষকে তথ্য জানানো ও মানুষকে শিক্ষিত করে তোলা। তিনি যুব সমাজের মানসিক অস্থিরতা দূরীকরণে সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।  

ল্যাব এইড এর ডিরেক্টর পারিশা সামিম বলেছেন, মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে ল্যাবএইড, স্টেট ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশ এবং ব্রিট এর যৌথ ব্যবস্থাপনায় মানুষিক স্বাস্থ্য কেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি কর্মীদের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে বিভিন্ন কর্মশালা ও প্রশিক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। 

ব্রিট-এর প্রতিষ্ঠাতা রাহাতুল আশেকিন বলেছেন, করোনা পরিস্থিতিতে অনেকেই মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। অনেকে চাকরি হারিয়েছেন অথবা ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে। আবার ঘরে বন্দি থাকার কারণে অনেকে অবসাদগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। এ থেকে মুক্তি পেতে সবাইকে সচেতন হতে হবে।