ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২২, এপ্রিল ২০২১ ১৭:৫৯:৫৪ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

প্রধানমন্ত্রীর উপহারে মাথা গোঁজার ঠাঁই হলো সাবেক এমপির

নিজস্ব প্রতিবেদক

উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:২৪ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে উপহার হিসেবে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ সদস্য এনামুল হক জজ মিয়াসহ দুইশত ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে আধাপাকা ঘর এবং জমি প্রদান করা হয়। দুইবারের সংসদ সদস্য হয়েও জীবনের শেষ বেলায় এসে একেবারেই নিঃস্ব এই মানুষটি উপহারের ঘর পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছেন। ঘর পাওয়ার পর তিনি বললেন, প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরে শুয়ে এবার শান্তিতে মরতে পারব।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে উপকারভোগীদের কাছে ঘর এবং জমি প্রদান করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন বাদল, পৌর মেয়র এস এম ইকবাল হোসেন সুমন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. তাজুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আতাউর রহমান, ৬৫ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রেশমা আক্তারসহ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বৃন্দ।

এনামুল হক জজ মিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাবেল গোলন্দাজে এমপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। দোয়া করি আল্লাহ উনাদের মঙ্গল করুন। আমি জীবন সায়াহ্নে এসে সর্বস্বান্ত হয়েছি। মাথাগোঁজার কোন ঠাই ছিল না। ভাড়া করা বাসায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে খুবই কষ্টে দিনাতিপাত করছিলাম। প্রধানমন্ত্রী আমার মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দিয়েছেন। সাত আট বছরের ছোট্ট একটা ছেলে আছে আমার। শেষ বয়সে এসে ছেলেটার একটা
ঠিকানা হলো। আমি এখন শান্তিতে মরতে পারবো।

সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল বলেন, প্রধানমন্ত্রী চান দেশে কোনও মানুষ গৃহহীন থাকবে না। সবার মাথা গোঁজার ঠাঁই হবে। সাবেক সাংসদ এনামুল হক জজ মিয়া চাচাকে প্রধানমন্ত্রীর এই উপহার তুলে দিতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত।

দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও নিজের মাথা গোঁজার ঠাঁই তৈরি করতে পারেননি জজ মিয়া। সন্তানেরাও পারেননি সেই স্বপ্ন। কিছুদিন আগে তার দুর্দশার কথা তুলে ধরে গণমাধ্যমে একাধিক প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। অবশেষে জীবন সায়াহ্নে এসে বসবাসের জন্য নিজের ঘর পেলেন জজ মিয়া।


-জেডসি