ঢাকা, বুধবার ২৭, জানুয়ারি ২০২১ ১৬:৪৯:৪৬ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনা টিকাদান উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী দেশে করোনার প্রথম টিকা নিলেন নার্স রুনু টিকায় অগ্রাধিকার পাবেন কারা, সংসদে জানালেন প্রধানমন্ত্রী করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিলেন কমলা হ্যারিস করোনাতাণ্ডবে বিশ্বে মৃত্যু ২১ লাখ ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে বাইডেন প্রশাসনে আরেক বাংলাদেশী নারী করোনার টিকাদান কর্মসূচি শুরু হচ্ছে আজ মেক্সিকোতে করোনায় মৃতের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়েছে

করোনার উৎপত্তি ভারত-বাংলাদেশ, দাবি চীনা বিজ্ঞানীদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:১৪ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০২০ শনিবার

ছবি: ইন্টারনেট

ছবি: ইন্টারনেট

নভেল করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ মহামারির উৎস চীন নয়, বরং ভারত, বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র বা অন্য কোনো দেশে হতে পারে। এমনই দাবি করেছেন চীনা বিজ্ঞানীরা। তারা ভাইরাসটি বিস্তারের দায় অন্যদের ওপর চাপিয়ে দিতেই এই প্রয়াস চালাচ্ছে বলে ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

চীনা বিজ্ঞানীরা করোনাভাইরাসের উৎপত্তির জন্য ৯টি দেশের নাম বলেছেন। এসব দেশ হচ্ছে বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র, গ্রিস, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইতালি, চেক প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া ও সার্বিয়া। তবে ভারতের নামই বিশেষভাবে তারা বলছেন। তারা দাবি করছেন, গত গ্রীস্মে তাপদাহের সময় ভারতে এই ভাইরাসের উৎপত্তি হয়ে থাকতে পারে।

চাইনিজ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেসের গবেষকদের দাবি, গত বছরের মে থেকে জুনে ভারতে তীব্র গরমের কারণে পানি সংকট দেখা দেয়। এর ফলে মানুষ এবং বানরসহ বিভিন্ন ধরনের বন্য প্রাণী কাছাকাছি সংস্পর্শে আসে।

ল্যান্সেট জার্নালের জন্য তৈরি করা প্রিপ্রিন্ট ওই আর্টিকেলের আনুষ্ঠানিক পিয়ার রিভিউ করা হয়নি। তবে নিজেদের গবেষণায় চীনা বিজ্ঞানীরা বলছেন, বানর থেকে মানুষের শরীরে ছড়িয়ে করোনাভাইরাস। কারণ ওই সময় তারা উভয় একই জায়গার পানি ব্যবহার করেছিল।

এছাড়া ভারতের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং ‘অদক্ষ’ সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, ‘ক্রান্তীয় আবহাওয়া’ এবং ‘অনেক তরুণ জনসংখ্যার’ কারণে দ্রুত এই ভাইরাস ছড়িয়েছে বলে দাবি করেছেন চীনের বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, ভারতে গত জুলাই বা আগস্টে প্রথম মানুষ থেকে মানুষে করোনার সংক্রমণ ঘটে।

সম্প্রতিক ইতালির গবেষকরা বলছেন, তারা মিলান শহরে গবেষণা চালিয়ে দেখেছেন সেপ্টেম্বর মাসেই দেশটিতে এই ভাইরাস ছড়াচ্ছিল। যদিও বহুলভাবে স্বীকৃত মত হচ্ছে গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে উহান থেকে করোনার বিস্তার ঘটেছে। তবে এখন এর উৎপত্তি খোঁজে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কাজ করছে।

তবে চীনাদের এ দাবির সঙ্গে একমত নন অনেক বিশেষজ্ঞ। গ্লাসগো ইউনিভার্সিটির ভাইরাল জিনোমিক্স অ্যান্ড বায়োইনফরম্যাটিকস বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডেভিড রবার্টসন চীনা বিজ্ঞানীদের গবেষণাপত্রকে ‘খুবই ত্রুটিপূর্ণ’ বলে উল্লেখ করেছেন।

তিনি বলেছেন, ন্যূনতম রূপান্তরিত ভাইরাস সিকোয়েন্স শনাক্তকরণে লেখকদের দৃষ্টিভঙ্গি সহজাতভাবেই পক্ষপাতদুষ্ট। লেখকরা মহামারির বিস্তৃতি সংক্রান্ত উপাত্তগুলো এড়িয়ে গেছেন, যাতে চীনে ভাইরাসের উত্থান এবং সেখান থেকে ছড়িয়ে পড়া স্পষ্ট দেখা যায়।

এ বিশেষজ্ঞের মতে, চীনা বিজ্ঞানীদের গবেষণাপত্রটি সার্স-কভ-২ সম্পর্কে বোঝার বিষয়ে নতুন কিছুই যোগ করেনি।

-জেডসি