ঢাকা, শুক্রবার ০৫, মার্চ ২০২১ ৬:৪৬:৫২ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনার টিকা নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী করোনায় আরও ৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ করোনা অগ্রযাত্রা থামাতে পারে নাই, আর কেউ পারবে না: প্রধানমন্ত্রী ঢাবি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা করবো: সামিয়া রহমান অবশেষে শাস্তি পেলেন জামালপুরের সেই ডিসি এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

করোনায় নতুন করে দারিদ্র্যের শিকার হবে ৫০ কোটি মানুষ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৪:১১ পিএম, ৯ এপ্রিল ২০২০ বৃহস্পতিবার

ছবি: ইন্টারনেট

ছবি: ইন্টারনেট

করোনভাইরাস সমগ্র বিশ্বকে ঠেলে দিয়েছে ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দার মুখে। যা বিশ্বের প্রায় ৫০ কোটি মানুষকে নতুন করে দারিদ্যের শিকার বানাবে বলে মনে করে বিশেষজ্ঞরা। ভাইরাসের অর্থনৈতিক ও মানবিক ক্ষতি নিয়ে জাতিসংঘের এক গবেষণায় উঠে এসেছে এমন তথ্য। এই গবেষণার তথ্য নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩০ বছরের মধ্যে প্রথমবার বিশ্বজুড়ে দরিদ্রের সংখ্যা বাড়তে যাচ্ছে। বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ও জি-২০ এর অর্থমন্ত্রীদের গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকের এক সপ্তাহ আগে এই প্রতিবেদন প্রকাশিত হলো।

ব্রিটেনের কিংস কলেজ লন্ডন ও অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির (এএনইউ) বিশেষজ্ঞরা যৌথভাবে জাতিসংঘ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রতিবেদন লিখেছেন।

এএনইউর ক্রিস্টোফার হোয় বলেছেন, ‘সম্ভবত স্বাস্থ্য সংকটের চেয়েও মারাত্মক হতে চলেছে অর্থনৈতিক সংকট।’ প্রতিবেদনে বিশ্বজুড়ে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৪০ থেকে ৬০ কোটি বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র্যের অবসান ঘটাতে জাতিসংঘের টেকসেই উন্নয়ন লক্ষ্যকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

কিংস কলেজ লন্ডনের অধ্যাপক অ্যান্ডি সামনার বলেছেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব উন্নয়নশীল দেশঘুলো সামাজিক সুরক্ষার পরিসর বাড়াতে হবে। আমাদের এই গবেষণা এটা নিয়েই। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে কোভিডের কতটা প্রভাব পড়তে যাচ্ছে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় কী ধরনের সহায়তা করতে পারে সেদিকে মনোযোগ দেওয়ার বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।’

গবেষকদের আশঙ্কা, মহামারি শেষ হতে হতে বিশ্বের অর্ধেকের বেশি জনগোষ্ঠী দারিদ্র্য জীবনযাপন শুরু করবে। নতুন দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ৪০ শতাংশ হবে পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের। আর এক-তৃতীয়াংশ হবে সাব-সাহারান আফ্রিকা ও দক্ষিণ এশিয়ার।

-জেডসি