ঢাকা, শনিবার ০৬, জুন ২০২০ ২৩:০২:০৬ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
রাজধানীতে করোনা চিকিৎসায় ৩শ শয্যার হাসপাতাল উদ্বোধন চট্টগ্রামে করোনা চিকিৎসায় মা ও শিশু হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু শুধু ঢাকাতেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৭ লাখ : দ্য ইকোনমিস্ট পল্লবীতে নারীর হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন হাসপাতালে ভর্তি ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস কাল

ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে আছি: কেন্দ্রের সহযোগিতা চাইলেন মমতা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:০২ পিএম, ২১ মে ২০২০ বৃহস্পতিবার

ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে আছি: কেন্দ্রের সহযোগিতা চাইলেন মমতা

ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে আছি: কেন্দ্রের সহযোগিতা চাইলেন মমতা


ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্ত দক্ষিণবঙ্গে ত্রাণ ও পুনর্গঠনের কাজে কেন্দ্রীয় সরকারের সহায়তা চাইলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গের খোঁজ-খবর নিতে গতকাল বুধবার রাতেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন ভারতের ন্যাশনাল কংগ্রেসের নেত্রী সোনিয়া গান্ধী ও তার মেয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

এদিকে সমগ্র দেশবাসীর কাছে সাহায্যের জন্য আর্জি জানান মমতা। তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক ভাবে এই ঝড়কে না দেখে মানবিকতার দিক দিয়ে দেখুন। এখন রাজনীতি দূরে থাক। বাংলাকে ধ্বংস থেকে উন্নয়নের পথে ফের দাঁড় করাতে হবে। সবার সহযোগিতা চাইছি।’

দেশটির সংবাদমাধ্যম কলকাতা ২৪-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার রাতে পশ্চিমবঙ্গের সার্বিক পরিস্থিতির খোঁজ-খবর নিতে মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ফোন করেছেন সোনিয়া গান্ধী ও তার মেয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। রাজ্যের অবস্থা নিয়ে তাদের মধ্যে কথা হয়েছে। যেকোনো প্রয়োজনে রাজ্যের পাশে থাকারও আশ্বাস দিয়েছেন তারা।

গতকাল সর্বশক্তি নিয়েই সুপার সাইক্লোন আম্পান তাণ্ডব চালায় পশ্চিমবঙ্গে। সাগর থেকে ধ্বংসলীলা চালাতে চালাতে লন্ডভন্ড করে দেয় দুই ২৪ পরগনাসহ কলকাতা। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে দক্ষিণ ও উত্তর ২৪ পরগনা।

প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে ধূলিসাৎ পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি জেলা। প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এখনো পর্যন্ত ১০ থেকে ১২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এরমধ্যে কলকাতায় তিনজন মারা গেছেন।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জায়গা শেষ হয়ে গেছে। দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুরসহ একাধিক অংশে কার্যত ধ্বংসলীলা চলেছে। তার আশঙ্কা অন্তত ১০-১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘সব রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। সব ব্রিজ বন্ধ। ইলেকট্রিসিটি পুরো শেষ, পানির সংযোগ বন্ধ। কৃষিক্ষেত্র সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত।’