ঢাকা, বুধবার ২৭, জানুয়ারি ২০২১ ১৫:৪৭:১৮ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিলেন কমলা হ্যারিস করোনাতাণ্ডবে বিশ্বে মৃত্যু ২১ লাখ ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে বাইডেন প্রশাসনে আরেক বাংলাদেশী নারী করোনার টিকাদান কর্মসূচি শুরু হচ্ছে আজ মেক্সিকোতে করোনায় মৃতের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়েছে

যুক্তরাষ্ট্রে মিনিটে করোনা আক্রান্ত ৯৯, মৃত্যুরও রেকর্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১১:৪০ এএম, ৪ ডিসেম্বর ২০২০ শুক্রবার

যুক্তরাষ্ট্রে মিনিটে করোনা আক্রান্ত ৯৯, মৃত্যুরও রেকর্ড

যুক্তরাষ্ট্রে মিনিটে করোনা আক্রান্ত ৯৯, মৃত্যুরও রেকর্ড

করোনা আক্রান্তে আবারও রেকর্ড করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এক দিনে ২৭৩১ মৃত্যু হয়েছে করোনা সংক্রমণে। গত এক বছরে ভাইরাসের কোপে ২ লক্ষ ৭৯ হাজারের বেশি মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু এত সংখ্যক দৈনিক মৃত্যু এই প্রথম।

গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ ১ লক্ষ ৯৫ হাজার ৬৯৫। দৈনিক সংক্রমণ এখন দু’লাখের আশপাশেই থাকছে। নভেম্বরে প্রতি সপ্তাহে ১০ লক্ষ মানুষ নতুন করে করোনা-আক্রান্ত হয়েছেন।

‘কোভিড ট্র্যাকিং প্রজেক্ট’ নামে একটি পর্যবেক্ষক সংস্থা জানাচ্ছে, মিনিটে গড়ে ৯৯ জন করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। ওই সংস্থাই জানিয়েছে, এই মুহূর্তে আমেরিকার হাসপাতালগুলিতে মোট ১ লক্ষ ২২৬ জন করোনা-আক্রান্ত হয়ে ভর্তি। গত এক বছরে এ রকম পরিস্থিতি এই প্রথম।

পরিস্থিতি যে এ রকম হবে, তা নিয়ে আগেই সতর্ক করেছিলেন দেশের শীর্ষস্থানীয় এপিডিমিয়োলজিস্ট অ্যান্টনি ফাউচি। কারণ হিসেবে জানিয়েছিল, যে পরিমাণ লোক থ্যাঙ্কসগিভিংয়ে পার্টি করেছেন, তাতে সংক্রমণ বাড়বে। প্রশাসনের এখন চিন্তা, এত রোগীর চিকিৎসার ভার তারা সামলাবে কী ভাবে। ইতিমধ্যেই অধিকাংশ হাসপাতালে আর শয্যা ফাঁকা নেই। এদিকে একটানা সেবা দিয়ে ক্লান্ত চিকিৎসক, নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাদের একটা বড় অংশও করোনা-আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে সামনে শীত।

‘সেন্টারস ফর ডিজ়িজ় কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’ (সিডিসি)-এর ডিরেক্টর রবার্ট রেডফিল্ড বলেন, ‘‘বাস্তব হল এটাই যে, ডিসেম্বর, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি, এই তিনটে মাস দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ইতিহাসে কঠিনতম অধ্যায় হতে চলেছে।’’

সিডিসি-র কর্মকর্তা সিন্ডি ফ্রেডম্যান পর্যটকদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়গুলি দেখেন। তিনি বলেছেন, ‘‘সরকারের পরামর্শ না-মেনে বহু লোকজন থ্যাঙ্কসগিভিংয়ের ছুটিতে বেরিয়ে পড়েছিলেন। হয়তো যারা বেরিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে খুব সামান্য সংখ্যক মানুষের শরীরে ভাইরাস ছিল, কিন্তু তাদের থেকে সংক্রমণ হয়তো কয়েক গুণ বেড়ে গেছে। ছড়িয়ে গেছে আশপাশের লোকজনের মধ্যে।’’  

ক্যালিফর্নিয়া, টেক্সাস ও ফ্লরিডা— এই তিনটি প্রদেশের জনঘনত্ব সবচেয়ে বেশি। সবচেয়ে খারাপ অবস্থাও এদের। প্রতিটি প্রদেশে ১০ লক্ষের বেশি করোনা-আক্রান্ত। লস অ্যাঞ্জেলেস শহরে ভয়ানক বেড়েছে সংক্রমণ।

মেয়র এরিক গারসেট্টি আজ শুক্রবার একটি জরুরি নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছেন, কোনও বাসিন্দা বাড়ি থেকে বেরোতে পারবেন না। বর্তমানে আমেরিকায় সংক্রমণের এপিসেন্টার লস অ্যাঞ্জেলেস।