ঢাকা, শনিবার ১৩, জুলাই ২০২৪ ৯:৫৯:৩৯ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
কোটা আন্দোলনকারীদের দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ আজ সিরাজগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, পানিবন্দি লাখো মানুষ নেপালের সড়কে ভূমিধস, দুই বাস নদীতে পড়ে নিখোঁজ ৬৩ চট্টগ্রামে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষ, নারী-শিশুর মৃত্যু ১৮তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা শুরু ভোর থেকে রাজধানীতে ঝুম বৃষ্টি, বিপাকে পরীক্ষার্থীরা

নারীরা নিজ পরিবারে ভায়োলেন্সের শিকার হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৯:১০ পিএম, ২৫ জুলাই ২০২৩ মঙ্গলবার

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

সারাদেশে নারীরা এখন নিজ পরিবারের মধ্যে ভায়োলেন্সের শিকার হচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব ড. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিসেমিনেশন অব ন্যাশনাল গাইডলাইন ফর প্রিভেনশন অব সন প্রিফারেন্স অ্যান্ড দ্যা রিস্ক অব জেন্ডার-বেসড সেক্স সিলেকশন' শীর্ষক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

ড. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, ‘সন্তান জন্ম দেওয়ায় মায়ের ভূমিকা বেশি। তবে সেক্সুয়াল সিদ্ধান্তে মায়েরা কোনো ভুমিকা রাখতে পারেন না। এমনকি গর্ভের সন্তান মেয়ে হলে পরিবারে মায়ের প্রতি সবচেয়ে বেশি ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন দাদি এবং ননদরা। বর্তমান সরকার কর্মক্ষেত্রে নারীদের অগ্রাধিকার দিয়েছে। তারপরও যদি মেয়েরা ভায়োলেন্সের শিকার হয়, বিষয়টি নিয়ে আমাদের সবাইকেই ভাবতে হবে।’

সচিব আরো বলেন, ‘মেয়ে হলো পরিবারের জন্য আশীর্বাদ। তাকে যদি সুযোগ সুবিধা করে দেওয়া হয়, তাহলে তারা নিজেদের যোগ্য নাগরিক প্রমাণের সুযোগ পায়। তারা ছেলেদের তুলনায় কোনো অংশেই পিছিয়ে নেই, বরং এগিয়ে। আমরা বই-পুস্তকের মাধ্যমে কিছু সচেতনতা তৈরি করছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই বিষয়ে অভিভাবকদের এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই গর্বের সন্তান নষ্ট করার প্রবণতা কমে যাবে। যারা ক্লিনিশিয়ান আছেন, যারা সেক্স ডিটারমিনেশন করে দেন, তাদের কিছু সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। একজন মায়ের আগে দুটি মেয়ে আছে, এবং এখন আবার তার মেয়ে সন্তান হচ্ছে শুনলে সেই মা ভায়োলেন্সের শিকার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এজন্য প্রয়োজনে বিষয়টি পরিবারকে জানানো উচিত হবে না। এতে করে গর্বের সন্তানটি অবিচারের শিকার হবে না।’

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অন্যান্যদের মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবির, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) ডা. রাশেদা সুলতানা প্রমুখ।