ঢাকা, সোমবার ১০, মে ২০২১ ১:১৯:৫০ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারছেন না দেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় প্রাণহানি ৫৬ মার্কেটে মানুষের ঢল, নেই স্বাস্থ্যবিধির বালাই একটা ঈদ বাড়িতে না করলে কী হয়: প্রধানমন্ত্রী ফেরিঘাটে বিজিবি মোতায়েনের পরও ঘরমুখো মানুষের ঢল কাবুলে বিস্ফোরণে নিহত ৫৫ জনের অধিকাংশই ছাত্রী আজ মা দিবস, মাগো…ওগো দরদিনী মা

খালেদা জিয়ার শরীরে ব্যথা নেই, ২-৩ দিন পর ফের পরীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১২:০৬ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০২১ বুধবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও শুরুর দিকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শরীরে তেমন উপসর্গ দেখা যায়নি। চলতি সপ্তাহের প্রথম দুদিন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর শরীরে জ্বর এলেও গত প্রায় ৬০ ঘণ্টায় তার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। বর্তমানে তিনি মোটামুটি সুস্থ আছেন। গত তিন দিন ধরে তার শরীরে কোনো ব্যথা নেই। তাই আগামী ২-৩ দিন পর তিনি করোনা মুক্ত হয়েছেন কি-না, তা জানতে আবারও পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্যরা।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা বলছেন, যেকোনো ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হলে ১৪-১৫ দিন পর আবার পরীক্ষা করা হয় যে তার শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি আছে কি-না। আজ খালেদা জিয়ার করোনা আক্রান্তের ১২তম দিন শেষ হবে। ফলে ১৪ অথবা ১৫ দিনের মাথায় তার আবার পরীক্ষা করা হবে।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, ‘ম্যাডামের শরীর, আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছেন। গত তিন দিন ধরে তার শরীরে কোনো ব্যথা নেই। আজকে রাতে আমরা আবার তাকে দেখতে যাব।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খালেদা জিয়ার আরেক চিকিৎসক বলেন, ‘ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা ভালো। কিন্তু তিনি এখনই করোনামুক্ত এটা তো পরীক্ষার আগে বলা যাবে না। সাধারণত করোনা আক্রান্তের ১৪ দিনের মধ্যে মানুষ আবার এই ভাইরাসমুক্ত হয়ে যায়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে এক মাসও সময় লাগে। তাই আমরা ম্যাডামের ১৪ অথবা ১৫ দিনের মাথায় তার আবার করোনা পরীক্ষা করব।’

এর আগে সোমবার (১৯ এপ্রিল) রাত ১২টার দিকে খালেদা জিয়াকে দেখে এসে ডা. জাহিদ বলেন, ‘বেগম জিয়ার গত ৪২ ঘণ্টা জ্বর ছিল না। এটি একটি ভালো দিক। বিষয়টি আমরা ইতিবাচক হিসেবেই দেখছি। তার অবস্থা আলহামদুলিল্লাহ ভালো। ডাক্তারি ভাষায় তার বিপি (রক্তচাপ) অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য। তার অন্যান্য উপসর্গও বৃদ্ধি পায়নি অথবা নতুনভাবে দেখা দেয়নি।’

গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। তিনি ছাড়াও তার বাসভবন ফিরোজার আরও ৮ জন ব্যক্তিগত স্টাফ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়। তাদের চিকিৎসাও এখানে চলছে। করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে বড় ছেলে তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমানের নির্দেশনায় চিকিৎসা চলছে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীর। গত ১৫ এপ্রিল রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার সিটিস্ক্যান করা হয়। সেটির ফলাফলও ভালো এসেছে বলে জানিয়েছেন দলটির নেতাকর্মী ও চিকিৎসায় নিয়োজিতরা।

৭৫ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত। প্রায় আড়াই বছরের মতো কারাগারে থাকার পরে দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু পর পরিবারের আবেদনে সরকার গত বছরের ২৫ মার্চ ‘মানবিক বিবেচনায়’ শর্তসাপেক্ষে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। দুই দফায় এ মুক্তির মেয়াদও বাড়ানো হয়েছে। তখন থেকে তিনি গুলশানে নিজের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রয়েছেন।

-জেডসি