ঢাকা, মঙ্গলবার ২০, এপ্রিল ২০২১ ১৫:২৩:৩৭ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনা টিকা উৎপাদনে সহায়তার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর লকডাউনের সময় বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি কয়েক মাসেই নিয়ন্ত্রণে আসবে করোনা: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভারতে করোনায় আরও ১,৭৫৭ মৃত্যু, আক্রান্ত আড়াই লাখ খালেদা জিয়ার জ্বর নেই, শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক

কালবৈশাখীর তাণ্ডবে গাইবান্ধায় সাত নারীসহ ১১ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১২:২৬ পিএম, ৫ এপ্রিল ২০২১ সোমবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

গাইবান্ধায় ঝড়ে গাছ চাপা পড়ে ও আতঙ্কে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ জন। নিহতদের মধ্যে ৭ নারী রয়েছে। গত রবিবার রাত পৌনে ১২টার দিকে জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেল ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার রাফিউল আলমের (ইউএনও) পাঠানো প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

এর মধ্যে সর্বশেষ রাত ৯টার দিকে সদর হাসপাতাল থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিন নারী। তারা হলেন- সদর উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামের আরজিনা (২৮), রিফাইতপুর সরকারতারি গ্রামের শ্রীমতি জোৎসা রানি (৬৫) ও কিশামত মালিবাড়ি টনটনি পাড়ার সাহেরা বেগম (৪০)।

নিহত অন্যরা হলেন- সদর উপজেলার হরিন সিংহা তিনগাছের তল গ্রামের শিশু মনির (৫), পলাশবাড়ি উপজেলার বেতকাপা ইউনিয়নের ডাকেরপাড়া গ্রামের জাহানারা বেগম (৫০), মোস্তফাপুর গ্রামের গোফ্ফার মিয়া (৪২) ও মনোহরপুর ইউনিয়নের কুমেদপুর গ্রামের মমতা বেগম (৫৫), ফুলছড়ি উপজেলার কাতলামারি গ্রামের শিমুলি আকতার (২৭) ও এরেন্ডাবাড়ির ডাকাতিয়ার চরের হাফেজ উদ্দিন (৪৪), সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের কিশামত হলদিয়া দয়াপাড়া গ্রামেন ময়না বেগম (৪০) এবং সাদুল্লাপুর উপজেলার আব্দুস সামাদ সর্দার।

এছাড়া, জেলা সদর ছাড়া বাকি ছয় উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অর্ধশতাধিক মানুষ গাছচাপা পড়ে ও স্থাপনার নিচে পড়ে আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ত্রিশজনের বেশি আহত নারী-পুরুষ জেলা হাসপাতালসহ অন্যান্য উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এদিকে, গতকাল বিকাল ৩টা থেকে ঝড় হওয়ার পর জেলাজুড়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি, বিদ্যুতের খুঁটি, দোকানপাটসহ সরকারি স্থাপনা। নষ্ট হয়েছে আমের মুকুল ও আমন ধানের গাছসহ বিভিন্ন ফসল।

এ বিষয়ে লা প্রশাসক আবদুল মতিন বলেন, নিহত প্রত্যেক পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা দেওয়া হবে। ঝরে ভেঙে পড়া গাছ অপসারণে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা কাজ করছেন। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি জেলা প্রশাসক।

রোববার (০৪ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে গাইবান্ধায় হঠাৎ প্রচণ্ড বেগে দমকা ও ঝোড়ো বাতাস শুরু হয়। টানা একঘণ্টা গাইবান্ধায় তাণ্ডব চালায় কালবৈশাখী। লণ্ডভণ্ড হয় জেলা সদরসহ পাঁচ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। বাতাসের তোড়ে ভেঙে পড়ে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি। উপড়ে যায় শতশত গাছপালা। এসময় ভয়ে দিগবিদিক ছুটোছুটি করেন স্থানীয়রা।

-জেডসি