ঢাকা, শুক্রবার ০১, মার্চ ২০২৪ ২০:০৯:৪৬ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
বেইলি রোডে ভবনের আগুনে দগ্ধ কেউই শঙ্কামুক্ত নন : স্বাস্থ্যমন্ত্রী অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা না থাকায় বারবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে স্বামীকে ফোন করে বাঁচার আর্তনাদ, পরে সন্তানসহ মিলল লাশ বেইলি রোডের আগুনে ভিকারুননিসার শিক্ষক ও তার মেয়ের মৃত্যু বেইলি রোডে ভয়াবহ আগুনে নিহত বেড়ে ৪৫ বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক বেইলি রোডে আগুন : ২৫ মরদেহ হস্তান্তর

নকশি কাঁথা তৈরি করে সেলিনা আক্তার স্বনির্ভর

উদ্যোক্তা ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০২:২৯ পিএম, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩ শুক্রবার

নকশি কাঁথা তৈরি করে সেলিনা আক্তার স্বনির্ভর

নকশি কাঁথা তৈরি করে সেলিনা আক্তার স্বনির্ভর

নকশি কাঁথা তৈরি করে  উদ্যোক্তা সেলিনা আক্তার স্বনির্ভর হয়েছেন। তিনি ভোলা শহরে বসবাস করেন। এক সময়ে স্বল্প আয়ের স্মামীর সংসারে বাড়তি আয়ের জন্য কিছু একটা করতে আগ্রহী হয়ে উঠেন। পরে ইউটিউবে নকশি কাঁথা তৈরি করতে দেখে মনোযোগী হন তিনি। প্রথম দিকে বিভিন্ন সমস্যা হলেও এখন বেশ জমে উঠেছে সেলিনার ব্যবসা।

নিজের প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি ও একগ্রতায় নকশি কাঁথা তৈরি করে আত্বনির্ভরশীল হয়ে উঠেছেন এ নারী উদ্যোক্তা। বর্তমানে অনলাইন ও অফলাইন দুইভাবেই কাঁথা বিক্রি করছেন। চাহিদাও রয়েছে বেশ। তার এখানে কর্মসংস্থান হয়েছে বেশ কজন নারী শ্রমিকের। ইতোমধ্যে সেলিনা মনোনীত হয়েছেন জেলা পর্যায়ে জয়িতা হিসেবে।

সেলিনা আক্তার জানান, পৌর শহরের ৮ নং ওয়ার্ড’র পৌর কাঠালী এলাকার নিজ বাড়ির সামনে গড়ে তুলেছেন ‘গ্লামার জোন নকশি কাঁথা’ নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। ছোটবেলা থেকেই সেলাই-আঁকা-ঝোকার উপর বেশ আগ্র ছিলো তার। তাই ২০১৮ সালের দিকে নকশি কাঁথা তৈরিতে মন দেন। পরে সফলতা দেখা দিলে বড় পরিসরে কাজ শুরু করেন। বর্তমানে ৩ জন নারী শ্রমিক সার্বক্ষণিক তার প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন।

তিনি জানান, এর বাইরেও প্রায় ৩০ জন নারী শ্রমিক চুক্তিতে তার প্রতিষ্ঠানে কাঁথা তৈরিতে কাজ করছেন। নানা ডিজাইনের মাসে ২৫ থেকে ৩০টি কাঁথা তৈরি করতে পারেন তারা। 

তিনি ছোটদের জন্য কাঁথা বিক্রি করছেন ৩’শ থেকে হাজার টাকায়। আর বড়দের নকশি কাথা ৬ হাজার টাকা থেকে ৮ হাজার। কোনোটা ১০ হাজার সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। প্রতিমাসে ৩০-৪০ হাজার টাকা লাভ থাকে।

সেলিনার পরিবারে অসুস্থ স্বামী ও একমাত্র কলেজে পড়ুয়া মেয়ে রয়েছেন। কিছুদিন আগে বড় মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন নিজের সঞ্চিত অর্থে। 

সম্প্রতি ভোলা জেলায় শুরু হওয়া মাসব্যাপী শিশু মেলা ও শিল্প প্রদর্শনী মেলায় তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের স্টল রয়েছে। 

সোনিয়া আক্তার জানান, বিভিন্ন ডিজাইনের উপর সুই-সুতা দিয়ে নিপুণভাবে হাতে নকশি কাঁথা তৈরি করা হয়। আবার অনেক সময় ক্রেতাদের দেয়া নকশার উপারও কাঁথা প্রস্তুত করেন। বর্তমানে তার স্বামী অসুস্থ থাকায় তার আয়ের টাকাই পরিবার চলে। আগামীতে আরো বড় পরিসরে নকশি কাঁথা তৈরির পরিকল্পনার কথা জানান তিনি।

সেলিনা আক্তারের মেয়ে ইসরাত জাহান মিম ভোলা সরকারি মহিলা কলেজে অনার্সে পড়ছেন। লেখা পড়ার পাশাপাশি তিনি মায়ের কাজে সহয়াতা করেন। 

এ ব্যাপারে ভোলা পৌরসভার প্যানেল মেয়র সালাউদ্দিন লিংকন বলেন, সফল নারী উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। বিভিন্ন প্রতিকূলতার সাথে লড়াই করে তিনি ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। তার নকশি কাঁথা তৈরির সফলতা দেখে অনেক নারীই এখন এ কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে চান।

জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক ইকবাল হোসেন বলেন, সেলিনা আক্তার একজন সফল নারী উদ্যোক্তা। তার নকশি কাঁথার নকশা ও মান অনেক উন্নত। তার অধীনে কাজ করে অনেক নারীর কর্ম সংস্থানের পথ সৃষ্টি হয়েছে। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে সেলিনা আক্তারকে এবছর অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারীর ক্যাটাগরিতে জেলা পর্যায়ে জয়িতা হিসাবে মনোনীত করা হয়েছে।