ঢাকা, শুক্রবার ২৯, মে ২০২০ ৩:৩৩:৫২ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
৩১ মে থেকে শর্তসাপেক্ষে অফিস খোলার সিদ্ধান্ত করোনায় আরো একজন পুলিশের মৃত্যু ব্রাজিলে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়াল করোনা: দেশে একদিনে রেকর্ড ২০২৯ জন শনাক্ত, মৃত্যু ১৫ ইউনাইটেডে করোনার রোগীদের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রাখা হয়েছিল

বিগ ব্যাং-এর পর বৃহত্তম মহাজাগতিক বিস্ফোরণ শনাক্ত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১১:২৯ এএম, ৬ মার্চ ২০২০ শুক্রবার

ছবি: ইন্টারনেট

ছবি: ইন্টারনেট

পদার্থবিজ্ঞানের তত্ত্ব অনুসারে, প্রচণ্ড এক বিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে আমাদের বিশ্বজগত সৃষ্টি হয়েছিল। সেই বিস্ফোরণের নাম বিগ ব্যাং। এবার বিজ্ঞানীরা এমন এক বিস্ফোরণের সন্ধান পাওয়ার দাবি করেছেন, যেটিকে বিগ ব্যাংয়ের পর এ যাবতকালের সবচেয়ে শক্তিশালী মহাজাগতিক বিস্ফোরণ বলে মনে করা হচ্ছে।

বিস্ফোরণটি ঘটেছে পৃথিবী থেকে অনেক দূরে অবস্থিত একটি গ্যালাক্সি বা ছায়াপথে। খুব অল্প সময়ের মধ্যে ঘটলেও কল্পনাতীত শক্তিশালী ছিল এই বিস্ফোরণ।

বিজ্ঞানিরা বলছেন, এখন পর্যন্ত মহাবিশ্বে ঘটা যে কোনো বিস্ফোরণের চেয়ে এটি ৫ গুণ শক্তিশালী ছিলো। পৃথিবী থেকে ৩৯০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে থাকা বিশাল এক ব্ল্যাক হোল থেকে বের হতে থাকা শক্তির মাধ্যমে বিষয়টি শনাক্ত করা হয়েছে। বিস্ফোরণটি অফিচুয়াস ছায়াপথে বিশাল গর্ত তৈরি করেছে। দ্য অ্যাস্টোফিজিকাল জার্নালে এ বিষয়টি বিস্তারিত তুলে ধরেছেন গবেষকরা।

ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর রেডিও অ্যাস্ট্রোনমি রিসার্চ-এর প্রফেসর মেলানিয়া জনস্টন হোলিট বলেছেন, বিস্ফোরণটি অত্যন্ত শক্তিশালী ছিলো। তবে এটি খুব ধীরগতিতে ঘটেছিলো। কয়েক মিলিয়ন বছর ধরে সংঘটিত ধীরগতির বিস্ফোরণের মতো।

তবে বিজ্ঞানিরা প্রথমে এই বিস্ফোরণ বিষয়ে সন্দিহান হয়ে পড়েছিলেন। কারণ এর ফলে সৃষ্ট গর্ত এতই বড় যে, এর একটি সারিতেই মিল্কিওয়ের মতো ১৫টি ছায়াপথকে রাখা সম্ভব। এছাড়া এরকম কোনো বিস্ফোরণ হওয়া সম্ভব তা কল্পনাতেও ছিলো না তাদের।

অস্ট্রেলিয়ার মার্সিসন ওয়াইডফিল্ড অ্যারে (এমডব্লিওএ) টেলিস্কোপ এবং ভারতের জায়ান্ট মিটারওয়েভ রেডিও (জিএমআরটি) টেলিস্কোপও বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে এই বিস্ফোরণকে ১৯৮০ সালের হেলেন পর্বতের আগ্নেয়গিরির উদগীরণের সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন ওয়াশিংটনের নেভাল রিসার্চ ল্যাবরেটরির গবেষক সিমোনা গিয়াচিনতুচি।

-জেডসি