ঢাকা, রবিবার ২৬, মে ২০২৪ ২১:১১:০৭ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
৮ লাখের বেশি মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে এসেছেন যেসব জেলায় ১২ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ঘূর্ণিঝড় রেমাল: দুই সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দুপুরে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১০ নির্দেশনা ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১০ ফুট জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ১৮ জেলায় আঘাত হানতে পারে রেমাল: দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী

মশা যে সকল কারণে মানুষকে কামড়ায়

ফিচার ডেস্ক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৩:১৬ পিএম, ৩১ আগস্ট ২০২৩ বৃহস্পতিবার

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

মশার হয়রানিতে দেশবাসী নাকাল। ছোট্ট পতঙ্গ মশার কামড় খায়নি, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। শুধু মশার কামড় এড়াতেই গোটা বিশ্বে বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য বেসাতি। কিন্তু কেন মশা মানুষকে কামড়ায়, সে তথ্য বেশ মজার। সহজ ভাষায় মানুষ ও প্রাণীকে না কামড়ালে বাঁচতে পারবে না মশা।

মশার জীবনচক্রের সাথে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত রক্ত। এটি ছাড়া মশার পক্ষে প্রজনন কর্মটি শেষ করা সম্ভব নয়। এজন্য স্ত্রী মশা রক্ত ​​খাওয়ার জন্য মানুষ ও প্রাণীকে কামড়ায়। বেশিরভাগ স্ত্রী মশা রক্ত ​​না খেয়ে ডিম উৎপাদন করতে পারে না। পুরুষ মশা মানুষ বা প্রাণীকে কামড়ায় না।

মশার কামড়ালে মানুষের শরীরে চুলকানি হয়। এসব চুলকানি সাধারণত কয়েক দিনের মধ্যে চিকিত্সা ছাড়াই চলে যায়। কিছু মশার কামড়ে খুব ফোলা, ঘা এবং স্ফীত হতে পারে। এই ধরনের প্রতিক্রিয়া কখনও কখনও স্কিটার সিন্ড্রোম বলা হয়, শিশুদের মধ্যে যা খুব সাধারণ।

স্ত্রী মশা যখন কোনো মানুষের শরীরে হুল ফোটায় তখন একই সঙ্গে সে দুটো কাজ করে। এক সে মানুষের রক্তে নিজের পূর্ণ করে এবং মানুষের ত্বকে এক ধরনের লালা ঢুকিয়ে দেয়। এই লালার কারণেই চুলকানি তৈরি হয়। লালার বিরুদ্ধে মানুষের ইমিউন যুদ্ধ করে বলেই চুলকানি হয়।

মশার কামড় কখনও কখনও মানুষের জন্য গুরুতর অসুস্থতার কারণ হতে পারে। যদি কোনো মশা কারও শরীর থেকে কোনো রোগের ভাইরাস বহন করে থাকে, তাহলে সেটি অন্যর শরীরেও ছড়াতে পারে। সংক্রমিত মশা পশ্চিম নীল ভাইরাস, জিকা ভাইরাস এবং ম্যালেরিয়া, হলুদ জ্বর এবং কিছু ধরনের মস্তিষ্কের সংক্রমণের ভাইরাস ছড়াতে পারে।

মশারা গন্ধের প্রতি আকৃষ্ট হয়, যেমন ঘাম, ফুলের গন্ধ এবং নিঃশ্বাসে ত্যাগ করা কার্বন ডাই অক্সাইডের প্রতি। এ কারণে কোনো কোনো মানুষকে মশা বেশি কামড়ায়, আবার কাউকে কম। একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রায় ২০ শতাংশ মানুষের প্রতি মশারা বেশি আকৃষ্ট হয়।

মানুষের রক্তের ধরন, পরনের কাপড়,শ্বাস-প্রশ্বাস বা এমনকি মানুষের ত্বকে বসবাসকারী নানা ধরনের ব্যাকটেরিয়াসহ বিভিন্ন কারণে মশা কাউকে বেশি কামড়াতে পারে। আগেই বলা হয়েছে, শুধুমাত্র স্ত্রী মশ কামড়ায়। যারা ডিম উৎপাদনের জন্য মানুষের রক্তের প্রোটিনের ওপর নির্ভরশীল। আর পুরুষ মশা পুষ্টির জন্য যে কোনো রস খেয়ে বেচে থাকে।

মজার বিষয় হলো, মশারা কিছু রক্তের গ্রুপ অন্যদের চেয়ে বেশি পছন্দ করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, সাধারণত দুইটি রক্তের গ্রুপের প্রতি স্ত্রী মশা বেশি আকৃষ্ট হয়। একটি হলো রক্তের ‘ও’ পজেটিভ গ্রুপ এবং অন্যটি হলো ‘এবি’ পজেটিভ গ্রুপ।

সেই সঙ্গে প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষের শরীর থেকে এক ধরনের ক্ষরণ হয়, যা তার রক্তের গ্রুপকে নির্দিষ্ট করে দিতে পারে। এই ধরনের ক্ষরণ হওয়া মানুষকে মশা কামড়াতে বেশি পছন্দ করে। অর্থাৎ, কম বেশি সব মানুষকেই মশা কামড়ায়।

মশা অনেক দূর থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড অনুভব করতে পারে। যে মানুষ যতো বেশি শ্বাস ছাড়বে, ততো বেশি মশার কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। লম্বা আকারের মানুষরগুলো বেশি করে শ্বাস ছাড়ে, তাই তাদেরকে মশা বেশি কামড়ায় বলে দেখা গেছে।

মশা প্রায় ১৬ থেকে ৪৯ ফুট দূরত্ব থেকে মানুষকে দেখতে পারে,যা মানুষকে খুঁজে পাওয়া বেশ সহজ করে তোলে। স্ত্রী মশাগুললো মানুষের শরীরের তাপের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং তাপের উত্স পাওয়া গেলেও, তারা মানুষের দিকে উড়ে যেতে পছন্দ করে।

মশা মানুষের ঘাম শুঁকতে পারে এবং তারা ল্যাকটিক অ্যাসিড,অ্যামোনিয়া এবং এতে নির্গত অন্যান্য যৌগের প্রতি আকৃষ্ট হয়। এর মানে হলো, গরমের দিনে যাদের ঘাম বেশি হয় এবং যারা বাইরে বেশিক্ষণ কাজ করেন, তাহলে তারা মশার কামড়ের জন্য বেশ আকর্ষনীয়।

মানুষের ত্বকে অনেক ধরনের আণুবীক্ষণিক জীবন বসবাস করে। এসব ব্যাকটেরিয়া ঘামের সাথে মিশে একটি স্বতন্ত্র সুগন্ধ তৈরি করে। কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, মানুষের ত্বকে ব্যাকটেরিয়ার ধরন এবং পরিমাণ মশার কামড়ের ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করতে পারে।

আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে, গর্ভবতী নারীদের প্রতি স্ত্রী মশা বেশি আকৃষ্ট হচ্ছে। তবে বিষয়টি নিয়ে খুব বেশি গবেষণা হয়নি। ২০০০ সালে আফ্রিকায় একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, অ-গর্ভবতী নারীদের তুলনায় দ্বিগুণ বেশি মশা গর্ভবতী নারীর প্রতি মশা বেশি আকৃষ্ট হয়।

আবার লোকগাঁথা আছে, মানুষের খাদ্যাভাস মশার কামড়ের জন্য সুস্বাদু হতে পারে। বিশেষ করে  করে, মিষ্টি, নোনতা, মশলাদার বা পটাসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া মানুষদেরকে মশা বেশি করে আকৃষ্ট করে বলে মনে করা হয়। এমনকি বিয়ার পানকারীদের প্রতিও বেশ আকৃষ্ট মশা।