ঢাকা, শুক্রবার ০৫, জুন ২০২০ ১২:১৮:২০ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
করোনায় আরেক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মৃত্যু করোনায় মৃত্যু তিন লাখ ৯৩ হাজার ছাড়ালো করোনা: মৃত্যুতে ইতালিকেও পেছনে ফেলল ব্রাজিল সুন্দরবন বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে: টিআইবি কোভিড-১৯ মোকাবেলায় দ্রুত টিকা উদ্ভাবনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর রাজশাহী থেকে ঢাকায় আম আনতে কাল থেকে বিশেষ ট্রেন

যত‌দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, তত দিন ক্লাস হবে সংসদ টি‌ভি‌তে

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১০:৫৪ এএম, ২০ এপ্রিল ২০২০ সোমবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

প্রাণনঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ র‌য়ে‌ছে। এ অবস্থায় যত‌দিন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান না খুল‌বে তত‌দিন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের পড়শোনায় যাতে বিঘ্ন না ঘটে সে জন্য সংসদ টি‌ভির মাধ্যমে পাঠদান করা হ‌বে। র‌বিবার মাদ্রাসা ও কা‌রিগ‌রির ক্লাস শুরু হ‌য়ে‌ছে।

কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. সানোয়ার হোসেন বলেন, শিক্ষার্থীদের পাঠদানের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য সংসদ টেলিভিশনে বিষয়ভিত্তিক ক্লাসগুলো অনলাইনে পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রবিবার থে‌কে ক্লাস  শুরু হ‌য়ে‌ছে।

এসএস‌সি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) পর্যায়ের। সব শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিকভাবে ক্লাস নেয়া হবে। ইতোমধ্যে রুটিন প্রকাশ করা হয়েছে।

সানোয়ার হোসেন বলেন, প্রতিদিন শিক্ষার্থীদের জন্য হোম ওয়ার্ক (বাসার কাজ) দেয়া হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর শিক্ষার্থীদের এসব বাসার কাজের খাতা মূল্যায়ন করে নম্বর দেয়া হবে।

তি‌নি আরও জানান, যত দিন  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাক‌বে তত‌দিন টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে। দীর্ঘসময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলে বাসায় অবস্থান করেই ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারে সে বিষয়টি বিবেচনায় নিয়েই সংসদ টেলিভিশনে রেকর্ড করা শিক্ষা কার্যক্রম সম্প্রচারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ‌দি‌কে সংসদ বাংলাদেশ টিভির মাধ্যমে দাখিল ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণির আরবি বিষয়ের রেকর্ড করা ক্লাস সম্প্রচার শুরু হ‌য়ে‌ছে ।`আমার ঘরে আমার মাদরাসা’ শিরোনামে এ কার্যক্রম শুরু হয়ে‌ছে। শনিবার (১৮ এপ্রিল) ১৯ থেকে ২৯এপ্রিল সংসদ টিভিতে দাখিলের ক্লাস সম্প্রচারের রুটিন প্রকাশ করেছে মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর।

দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সব স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলসহ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। করোনার বন্ধে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে গত ২৯ মার্চ সকাল থেকে সংসদ টিভিতে ‘আমার ঘরে আমার ক্লাস’ শিরোনামে  মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের ক্লাস সম্প্রচার শুরু হয়েছে। আর গত ৭ এপ্রিল ‘ঘরে বসে শিখি’ শিরোনামে সংসদ টেলিভিশনে শুরু হয়েছে প্রাথমিক স্তরের ক্লাস সম্প্রচার। এরই ধারাবাহিকতায় রবিবার `ঘ‌রে বসে করিগরি শিক্ষা’ শিরোনামে সংসদ টিভিতে এসএসসি ও দাখিল ভোকেশনালের ক্লাস ও ‘আমার ঘরে আমার মাদরাসা’ শিরোনামে দাখিল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের আরবি ক্লাস প্রচার শুরু হয়ে‌ছে।

মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলেন, দাখিল পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের সাধারণ বিষয় গুলোর ক্লাস মাধ্যমিকের সাথে একই, তাই মাধ্যমিকের ক্লাস গুলো দেখলেই দাখিলের শিক্ষার্থীরা উপকৃত হতে পারবেন। তাই আর আরবি বিষয়ের ক্লাসগুলো সংসদ টিভিতে প্রচারের জন্য তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সে প্রেক্ষিতে আরবি ক্লাসগুলো তৈরি করা হয়েছে। র‌বিবার থেকে এসে ক্লাসগুলো প্রচার করা হচ্ছে।

জানা গেছে, বিকেল ৪টা থেকে শুরু হয়ে ৫টা পর্যন্ত দাখিল পর্যায়ের ৬ষ্ঠ থে‌কে ১০ম শ্রেণির আরবি বিষয়ের ক্লাস সংসদ টিভিতে প্রচার করা হবে। প্রতিটি ক্লাস হবে ১৮ মিনিটের।

করোনার কার‌ণে বন্ধে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে টিভিতে পাঠদান চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধায়নে মাধ্যমিকের ক্লাস প্রচারের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। সহযোগিতা করছে এটুআই, ব্যানবেইসসহ অন্যান্যরা। প্রাথমিকের ক্লাস প্রচারের কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। আর কারিগরির ক্লাস প্রচারের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে টিভিতে এই পাঠদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। দীর্ঘ ছুটিতে লাখ লাখ শিক্ষার্থীকে পড়াশোনার মধ্যে রাখার সরকারি এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।  টেলিভিশনে মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের জন্য পরিচালিত বিষয়ভিত্তিক ক্লাস দেখলেই কাজ শেষ নয়। টিভিতে প্রচারিত প্রতিটি ক্লাসের পর দেয়া হবয় ড়র কাজ। আর প্রতিটি বিষয়ের আলাদা খাতায় সেই বাড়ির কাজ শেষ করতে হবে। করোনার তাণ্ডব শেষ হলে যখন স্কুল খোলা হবে তখন শিক্ষকদের সেই বাড়ির কাজের খাতা দেখাতে হবে। বাড়ির কাজের প্রাপ্ত নম্বর ধারাবাহিক মূল্যায়নের অংশ হিসেবে বিবেচিত হবে।

-জেডসি