ঢাকা, রবিবার ২৬, মে ২০২৪ ২১:২৬:০৯ পিএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
৮ লাখের বেশি মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে এসেছেন যেসব জেলায় ১২ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ঘূর্ণিঝড় রেমাল: দুই সমুদ্রবন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দুপুরে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবিলায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১০ নির্দেশনা ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ১০ ফুট জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ১৮ জেলায় আঘাত হানতে পারে রেমাল: দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী

কোচিংয়ে পানি পান করতে গিয়ে অসুস্থ, হাসপাতালে ২০ শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ১১:৩৭ এএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ সোমবার

সংগৃহীত ছবি

সংগৃহীত ছবি

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের বগারপাড় এলাকায় পানি পান করতে গিয়ে একই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ২০ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েন।

সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা. বদরুল আমিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টা পর্যন্ত সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ শিক্ষার্থী ভর্তি হন। তারা সবাই চাইল্ড কেয়ার একাডেমিক স্কুলের অষ্টম ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

অসুস্থ শিক্ষার্থীরা হলেন, বগারপাড় এলাকার শফিকুল ইসলামের মেয়ে চৈতি, টুকন মিয়ার মেয়ে তমা, আমিনুল ইসলামের মেয়ে তর্জনী, তোজাম্মেলের মেয়ে মেঘলা, আল আমিনের মেয়ে আশা, লাভলু মিয়ার মেয়ে লাবণ্য, আবদুল খালেকের মেয়ে নাদিয়া, সুরুজ্জামানের মেয়ে স্বর্ণা এবং তানিয়া ও জান্নাতুন ফেরদৌস।

স্থানীয় জানান, রোববার বিকেলে প্রতিদিনের মতো চাইল্ড কেয়ার একাডেমিক স্কুলের কোচিংয়ে যায় শিক্ষার্থীরা। এ সময় অতিরিক্ত গরমে এক শিক্ষার্থী পানি পান করতে গিয়ে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে একে একে প্রায় ২০ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ সময় ১০ জনকে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

চাইল্ড কেয়ার একাডেমিক স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক কামরুজ্জামান লিটন জানান, রোববার সকালে স্কুলে ক্লাস হয়েছে। পরে একই দিন বিকেলে কোচিং ছুটির কিছুক্ষণ আগেই হঠাৎ কয়েকজন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ সময় তাদের দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়।

ডা. বদরুল আমিন জানান, যখন অনেক মানুষ একসঙ্গে কোনো বদ্ধ ঘরে অনেকক্ষণ অবস্থান করেন, তখন ঘরে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেয়। যেটাকে মেডিকেল সায়েন্সে হাইপোক্সিয়া বলা হয়ে থাকে। এই কারণে একজনের দেখাদেখি ঘরে থাকা প্রত্যেকে এটাতে আক্রান্ত হয়। আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, এরা সকালে এভাবেই আক্রান্ত হয়েছেন। ওই ঘটনা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। শিক্ষার্থীরা দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।