ঢাকা, বৃহস্পতিবার ০২, ডিসেম্বর ২০২১ ৩:৪৫:১৯ এএম

First woman affairs online newspaper of Bangladesh : Since 2012

Equality for all
Amin Jewellers Ltd. Gold & Diamond
শিরোনাম
ভারত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত স্থগিত ব্রাজিলে করোনার নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ শনাক্ত ২৩ দেশে ছড়িয়েছে ওমিক্রন,৭০ দেশের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কাল শুরু এক দিনে করোনায় শনাক্ত ২৮২, মৃত্যু ২

ধর্ষণরোধে জরুরী সেবা দিবে বাঁচাও অ্যাপ

আহম্মেদ মুন্নী | উইমেননিউজ২৪

প্রকাশিত : ০৮:৫৩ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০২১ মঙ্গলবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

বাংলাদেশে ধর্ষণরোধ ও ধর্ষণের শিকার হবার আশংকা আছে এমন নারীকে রেসকিউ করতে পারে এমন একটি আ্যাপ সম্প্রতি বাজারে নিয়ে এসেছে বাঁচাও ডট লাইফ ফাউন্ডেশন’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জালাল আহমেদ ।

গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম বা জিপিএস প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাঁচাও অ্যাপ। যেখানে একটি মাত্র ছোঁয়ায় সমস্যায় পড়া একজন নারী তার কাছাকাছি স্বেচ্ছাসেবক, পরিবার, বন্ধু অথবা পুলিশের সঙ্গে যুক্ত হয়ে যান।

এই অ্যাপটি সহায়তা চাওয়া নারীর অবস্থান নির্দেশ করবে এবং এর ব্যবহারকারীদের সঙ্গে টেক্সট কিংবা অডিওর মাধ্যমে তার যোগাযোগ স্থাপন করবে।     

গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপটি ইনস্টল করার পর জরুরি যোগাযোগের জন্য পরিবার এবং বন্ধুদের ফোন নম্বর নির্বাচন করতে হয়। যদি কোনো নারী ধর্ষণের আশঙ্কা করেন তবে তিনি ‘রেপ অ্যালার্ট’ লেখা লাল বোতাম চাপলেই হবে।

কাছাকাছি থাকা স্বেচ্ছাসেবকরা ওই সতর্কবার্তা পেয়ে যাবেন এবং তারা ‘মেসেজ’ দিয়ে যোগাযোগ করবেন কিংবা ওই নারীকে সহায়তার জন্য ফোন করবেন। ওই নারীও পাল্টা যোগাযোগ করতে পারবেন। 

নিজেকে নিরাপদ মনে করলে ওই নারীকে ‘সেইফ নাউ’ লেখা সবুজ বোতামে একবার চাপ দিতে হবে। এছাড়া ‘বাঁচাও’ হেল্পলাইনে যে কেউ ফোন করতে পারবেন।

জালাল আহমেদ জানান, প্রথম বাধাটি ছিল গুগলের কাছ থেকে। ব্যক্তিগত গোপনীয়তা এবং তথ্য সুরক্ষা নিয়ে শঙ্কার কারণে সাতবার তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে গুগল।

“অ্যাপটিতে একটি কন্টাক্ট সেট করতে হয় যা স্বেচ্ছাসেবক এবং ঘটনার শিকার নারীর যোগাযোগের বার্তাগুলো রেকর্ড করবে। এতে অবশ্যই ব্যক্তিগত গোপনীয়তার কারণ দেখিয়ে অনেকে আপত্তি তুলবেন।

“তবে সবশেষে আমরা অ্যাপটি ব্যবহারের উদ্দেশ্য বোঝাতে সক্ষম হয়েছি এবং গুগুল আমাদের অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়া ব্যবহারকারী কোনো কলে যোগ দিতে চায় কি না কিংবা তা রেকর্ড করা হবে কি না তার অনুমোদন চাইবে এই অ্যাপ।”  

যেহেতু ব্যবহারকারীরা পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করবে এবং কোন স্থানে আছেন সেটা শেয়ার করবেন তাই ‘বাঁচাও’ অ্যাপ কিছু নীতিমালা মেনে চলবে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির প্রধান।

তিনি বলেন, “নারীদের নিরাপত্তার জন্য কলগুলো ‘অ্যাপ থেকে অ্যাপ’ এ যাবে তাই কোনো ফোন নম্বর দেখাবে না।”

‘বাঁচাও’ অ্যাপ কেবল অ্যান্ড্রয়েড ফোনেই ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপটি যারা তৈরি করেছেন তারা মনে করেন, আইফোন ব্যবহারকারীরা সাধারণত নগরে বসবাস করায় একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় নিরাপত্তা তারা পেয়ে থাকেন।

জনসংখ্যার বড় একটা অংশই গ্রামে বাস করায় এবং তাদের স্মার্টফোন না থাকায় প্রত্যন্ত এলাকার নারীদের এই প্রতিষ্ঠান সহায়তা করতে পারবে কি না সে বিষয়ে

গণমাধ্যমকে বাঁচা ও এ্যাপের প্রতিষ্ঠাতা জালাল আহমেদ বলেন,“বাংলাদেশে স্মার্টফোনের ব্যবহার অবশ্যই বেড়েছে কিন্তু সেটা প্রত্যেকেরই আছে এমনটা নয়। ঝুঁকিপূর্ণ নারীদের কাছে পৌঁছাতে আমরা বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন বিটিআরসির কাছে একটি ‘শর্ট কোড’ এর জন্য আবেদন করেছি।

তিনি আরও বলেন, “আমরা আশা করি আগামী নভেম্বরের মাঝামাঝি কোডটি প্রকাশ করতে পারব। শর্ট কোড হচ্ছে এমন একটি নম্বর যেখানে প্রচলিত মোবাইল ফোন থেকে কোনো ব্যক্তি কল করতে পারবেন এবং এসএমএসও পাঠাতে পারবেন। সহায়তা চাওয়ার জন্য ন্যূনতম স্বাক্ষর জ্ঞান থাকলেই চলবে।”